হাঁপানি নিয়ন্ত্রণে নিয়ম মেনে চলুন

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

ডা. আবু রায়হান উপপরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক শ্যামলী ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট টিবি হাসপাতাল

হাঁপানি একটি শ্বাসকষ্টজনিত রোগ। এ রোগ নিরাময়যোগ্য নয়; কিন্তু সঠিকভাবে নিয়ম মেনে ও ওষুধ খেলে এটি সহজেই নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। হাঁপানি রোগীদের জন্য জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের ন্যাশনাল অ্যাজমা সেন্টারে চিকিৎসা দেওয়া হয়। সঠিক নিয়ম ও ওষুধের মাধ্যমে হাঁপানি নিয়ন্ত্রণ করা গেলেও রোগীরা তা মেনে না চললে বিভিন্ন জটিলতায় পড়েন। সাধারণত তাপমাত্রা পরিবর্তন, ভাইরাসজনিত শ্বাসনালির রোগ, ধুলাবালি, পরিশ্রম ইত্যাদি কারণে হঠাৎ হাঁপানিজনিত শ্বাসকষ্ট ও কাশি বেড়ে যেতে পারে। এসব ক্ষেত্রে ইনহেলার নিয়ে অথবা নেবুলাইজেশনের মাধ্যমে স্যালবিটামল নিয়ে বাসায় শ্বাসকষ্ট কমানো যেতে পারে। এতে না কমলে চিকিৎসকের পরামর্শ

নিতে হবে। রেসপিরেটরি ফেইলইউর হয়ে অনেক সময় হাঁপানির তীব্রতা বেড়ে শ্বাসযন্ত্রের কার্যকারিতা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে রোগীকে তখন কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যবস্থা নিতে হয়। তীব্র হাঁপানি বা কাশি হলে অনেক সময় অ্যালভিওলাই ফেটে যেতে পারে। এর ফলে ফুসফুস ও বুকের মাঝখানের ফাঁকা জায়গায় বাতাস জমে নিউমোথোরাপ অথবা দুই ফুসফুসের মাঝের জায়গায় বাতাস জমে নিউমোমেডিয়াস্টিনাম হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে রোগীর শল্যচিকিৎসা প্রয়োজন হতে পারে। ছত্রাকজনিত রোগের কারণে হাঁপানি রোগীর কফের সঙ্গে রক্ত শ্নেষ্ফ্মা যায়। এ অবস্থায় রোগীর হাঁপানি তীব্রতা বেড়ে যায় এবং মাঝেমধ্যে কাশির সঙ্গে রক্ত যায়। এ ছাড়া আরও বিভিন্ন কারণে হাঁপানি হতে পারে। তাই এ ধরনের রোগের লক্ষণ প্রকাশ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা নিন, ভালো থাকুন।