৪৪ মামলার চার্জশিট প্রতিবাদে খুলনায় বিএনপির স্মারকলিপি

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

খুলনা ব্যুরো

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ও পরে খুলনায় বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৪৪টি মামলা দায়ের করে পুলিশ। সম্প্রতি এসব মামলায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনকালীন 'গায়েবি' মামলায় চার্জশিট দেওয়ার প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে সব মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে বিএনপি।

গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা প্রশাসক হেলাল হোসেনের হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন নগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, ২০১৮ সলের ১৫ মে খুলনা সিটি মেয়র ও ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে-পরে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ নগরীর ৮টি থানায় ৪৪টি মামলা দায়ের

করে। এর

বেশিরভাগ মামলাই অত্যন্ত গোপনে অপরাধ সংঘটন ছাড়াই দায়ের করা হয়, যা কয়েক মাস পর আমরা জানতে পারি। এসব 'গায়েবি' ও 'মিথ্যা' মামলায় মেয়র ও সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী, খুলনা-৩ আসনের ধানের শীষের প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট, খুলনা মহানগর বিএনপির সিনিয়র নেতা, সব থানা ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর, অঙ্গদলের মহানগর, থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা, পোলিং এজেন্ট, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধানদের আসামি করা হয়। এ ছাড়া ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ভোটকেন্দ্রভিত্তিক কমিটিপ্রধানদের আসামি করা হয়।

স্মারকলিপিতে আরও বলা হয়, এসব মামলায় আসামির সংখ্যা দুই সহস্রাধিক। কয়েকটি মামলায় দেড় মাসের মাথায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছিল। সদর থানার একটি মামলার এজাহারে আসামির সংখ্যা ছিল ২২। অথচ সেই মামলায় ১৫৮ জনের নামে চার্জশিট প্রদান করা হয়েছিল। চার্জভুক্ত আসামিরা সব ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

বিএনপি নেতারা স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন, গত দেড় বছরে ৪৪টি মিথ্যা মামলায় হয়রানির শিকার হয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। অমানবিক জীবন যাপন করতে হয়েছে সবাইকে। কারা নির্যাতন ভোগ করতে হয়েছে বিনা কারণে। বিএনপির প্রত্যেকটি পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে। এ অবস্থায় মামলায় চার্জশিট দেওয়ায় তারা নতুন করে আতঙ্কে ভুগছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, সিরাজুল হক নান্নু, নজরুল ইসলাম বাবু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, মেহেদী হাসান দীপু, শাহিনুর ইসলাম পাখী, আজিজুল হাসান দুলু, ইউসুফ হারুন মজনু, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, সাজ্জাত হোসেন তোতন, মুর্শিদ কামাল, কেএম হুমায়ুন কবির প্রমুখ।