বেড়াতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন চুয়েট শিক্ষার্থী

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

'আমার সুখেরা ভূতের মতো, মনে হয় আছে কিন্তু আসলে কিছুই নেই!' সম্প্রতি ফেসবুকে নতুন প্রোফাইল পিকচারের সঙ্গে এমন অদ্ভুত মন্তব্য জুড়ে দিয়েছিলেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) শিক্ষার্থী কামরুল হাসান সানি (২২)। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে তিনি নিজেই উঠে গেলেন সব সুখ-দুঃখ আর চাওয়া-পাওয়ার ঊর্ধ্বে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল নিয়ে বাসা থেকে বেড়াতে বের হয়েছিলেন তিনি; কিন্তু রাজধানীর ডেমরায় গাড়ি দুর্ঘটনায় লাশ হয়ে ফিরলেন।

ডেমরা থানার ওসি সিদ্দিকুর রহমান সমকালকে বলেন, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। দু'জন হতাহতের তথ্য পাওয়া গেলেও স্বজনরা কেউ পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ করেননি। কীভাবে ঘটনাটি ঘটে তাও জানা যায়নি। তবে পুলিশ এ ব্যাপারে খোঁজ নিচ্ছে।

নিহতের চাচাতো ভাই ফয়সাল জানান, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার মাদানিনগর এলাকায় পরিবারের সঙ্গে থাকতেন সানি। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগর থানায়। বাবার নাম শরিফ নাসির উদ্দিন। তিনি চুয়েট থেকে মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়ে চাকরির চেষ্টা করছিলেন। পাশাপাশি বিসিএস পরীক্ষার জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। গতকাল সন্ধ্যায় তিনি চাচাতো ভাই তাওহীদকে নিয়ে বাসা থেকে বের হন। মোটরসাইকেল চালিয়ে চলে যান ডেমরার রানীমহল সিনেমা হল এলাকায়। সেখানে তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় বেপরোয়া গতির একটি মাইক্রোবাস। এতে তারা দুই ভাই রাস্তায় ছিটকে পড়ে আহত হন। গুরুতর আহত সানিকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে রাত পৌনে ৯টায় মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। তবে তার ভাইয়ের আঘাত গুরুতর নয়। তাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, সানির বাবা-মা দু'জনই শিক্ষক। তাদের তিন সন্তানের মধ্যে একমাত্র ছেলে ছিলেন সানি।