বেশি দামে লবণ বিক্রি ও গুজব ছড়ানো

৫৭ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা, গ্রেপ্তার ২৮

প্রকাশ: ২০ নভেম্বর ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

৫৭ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা, গ্রেপ্তার ২৮

দাম বাড়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর মঙ্গলবার রাজধানীসহ সারাদেশে লবণ কেনার হিড়িক পড়ে। দোকানে দোকানে ভিড় করেন ক্রেতারা। রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ছবি সমকাল

দাম বাড়ার গুজবে পেঁয়াজের মতো লবণ নিয়ে সারাদেশে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক শুরু হয়েছে। ফলে মঙ্গলবার অনেককে দোকানে ভিড় জমাতে দেখা যায়। এতে দামও বাড়িয়ে দেন ব্যবসায়ীরা। ক্রেতার চাপ সামাল দিতে না পেরে কোথাও কোথাও দোকান বন্ধ রেখে ব্যবসায়ীদের চলে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার আশ্বস্ত করে এই গুজবে কান না দেওয়ার জন্য আহ্বান জানানো হচ্ছে। পাশাপাশি দাম বাড়ানোর কারসাজিতে জড়িতদের শাস্তি দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। এরই মধ্যে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে দাম বাড়ানোর কারসাজিতে জড়িত থাকার দায়ে ৫৭ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা, ২৮ জন গ্রেপ্তার ও ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় ৯ জনকে গ্রেপ্তার ও চারজনকে জরিমানা করা হয়। বিস্তারিত ব্যুরো, অফিস, নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবরে :

দোহার (ঢাকা) :উপজেলার শাইনপুকুর তথ্যকেন্দ্রের অভিযানে তিন দোকানিকে আটক করা হয়েছে। তারা হলেন- রুইথা গ্রামের লিটন, সাতভিটা গ্রামের নূরে আলম ও মুকসেদুল। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জ্যোতি বিকাশ চন্দ বলেন, ১৭ দোকানে অভিযান চালিয়ে ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

রাজশাহী :নগরীতে প্যাকেটজাত প্রতি কেজি লবণের দাম ৩০ টাকা হলেও ক্রেতার ভিড় দেখে কোনো কোনো দোকানি কেজিতে ১০ টাকা বেশি নেওয়া শুরু করেন। খবর পেয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দুই ব্যবসায়ীকে আটক করেন। তারা হলেন মানিক ও আজমল হোসেন। পুঠিয়া ও চারঘাটে একজন করে, বাগমারায় তিনজনকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মোট সাতজনকে ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

খুলনা :বড়বাজার, সন্ধ্যাবাজার, বানরগাতিসহ বিভিন্ন বাজারে ভিড় শুরু করে মানুষ। বিকেলের মধ্যেই দোকানগুলোতে লবণ শেষ হয়ে যায়। এতে লবণ কিনতে যাওয়া অনেকেই ফিরেছেন খালি হাতে। এদিকে গুজবে কান না দিতে জেলা প্রশাসন ও তথ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে প্রচার চালানো হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জ :সদর উপজেলা, পাকুন্দিয়া, হোসেনপুর, নিকলীতে ভোর থেকে গুজব ছড়িয়ে পড়ে। পরে নিকলী উপজেলা প্রশাসন সর্বসাধারণকে আশ্বস্ত করতে দুপুরে মাইকিং করে। এ ছাড়া বেশি দাম লবণ বিক্রির অভিযোগে দুই ব্যবসায়ীকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শহরের বড়বাজারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব মাহমুদ পাশার নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। ব্যবসায়ী অজয় সাহাকে এক লাখ টাকা ও সুমন মিয়াকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

সিলেট :কাজীটুলার জনতা স্টোরকে তিন হাজার, শাহি ঈদগাহের বেগম স্টোরকে তিন হাজার, ধানসিঁড়ি রুবেল স্টোরকে ২০ হাজার, আবদুল্লাহ স্টোরকে সাত হাজার ও আম্বরখানার ফরিদ স্টোরকে আট হাজার টাকা জরিমানা করে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর বিভাগীয় কার্যালয়। এ ছাড়া নগরীর উপকণ্ঠে শাহপরাণ এলাকায় সাফা স্টোরকে চার হাজার ও অলক স্টোরকে দেড় হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বিভিন্ন অপরাধে নগরীর বালুচরের বিসমিল্লাহ স্টোরকে সাত হাজার, মেডিসিন স্টোরকে তিন হাজার ও নাহার মেডিসিন স্টোরকে ছয় হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

নেত্রকোনা ও মদন :লবণের সংকট সৃষ্টির অভিযোগে খালিয়াজুরী সদর থেকে হায়দার চৌধুরী নামের এক ব্যবসায়ীকে আটক করে পুলিশ। সদর উপজেলার বড়াইল গ্রামের স্থানীয় বিএনপি নেতা আরব আলী লবণের দাম বেড়ে গেছে বলে গুজব ছড়ান। পরে পুলিশ তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে না পেয়ে ছেলে সাদ্দাম হোসেনকে আটক করে। বেশি দামে বিক্রির দায়ে বারহাট্টা উপজেলা সদরে ভ্রাম্যমাণ আদালত মনিহারি ব্যবসায়ী গোপাল পালকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করেন। সংকট সৃষ্টি ও বেশি দামে বিক্রি করার দায়ে উপজেলার জাওলা বাজারে আরিফ স্টোরকে তিন হাজার টাকা ও বাড়রী বাজারের মা কালী স্টোরকে এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) :উপজেলাজুড়ে গত সোমবার গুজব ছড়িয়ে পড়ে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে জগন্নাথপুর বাজারে অধিকাংশ দোকানেই লবণের সংকট দেখা দেয়। কেউ কেউ ক্রেতার ভিড় সামলাতে না পেরে দোকান বন্ধ করে চলে যান। এ অবস্থায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়।

হবিগঞ্জ :শহরের চৌধুরীবাজার এলাকায় চার ব্যবসায়ীকে আটক করে দ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার মধ্যরাতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসির আরাফাত রানার নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এ দ প্রদান করেন।

পটুয়াখালী :গুজবে কান দিয়ে অতিরিক্ত লবণ কেনায় শহরের কালিকাপুর এলাকার সুলতান আহমেদ মীরা ও সদর উপজেলার আউলিয়াপুর এলাকার জাকারিয়া সিকদারের প্রত্যেককে দুইশ' টাকা অর্থদ দেওয়া হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমান এ আদেশ দেন। এ ছাড়া অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির অভিযোগে শহরের পুরান বাজার এলাকা থেকে দীপক কুমারসহ দুই ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে।

কমলগঞ্জ ও বড়লেখা (মৌলভীবাজার) :সোমবার রাতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী হাকিম আশেকুল হক ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৩৭৫ কেজি লবণভর্তি একটি অটোরিকশা আটক করে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া বড়লেখায় সাত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তারা হলেন ব্যবসায়ী আবদুস শুক্কুর, কাউছার ভ্যারাইটিজ স্টোর, অজিত ভ্যারাইটিজ স্টোর ও শ্রী দুর্গা ভ্যারাইটিজ স্টোর, ব্যবসায়ী শাহাব উদ্দিন, ইমন ভ্যারাইটিজ স্টোর এবং জিসান ভ্যারাইটিজ স্টোর।

নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) :ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে চার অসাধু ব্যবসায়ীকে ৪৭ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন উপজেলার বিচারিক হাকিম ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার। দ প্রাপ্তরা হলেন নান্টু রায়, জানু মিয়া, বশির মিয়া ও কবির দাস।

সরিষাবাড়ী (জামালপুর) :লবণ সংকটের খবর প্রচারের প্রস্তুতিকালে পাঁচ কলেজছাত্রকে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয়। এই কলেজ শিক্ষার্থীরা হলো- শামীম আহম্মদ, সিফাত মিয়া, রাফি হোসেন, সাগর মিয়া ও আকাশ ইসলাম।

কাপাসিয়া (গাজীপুর) :বেশি দামে লবণ বিক্রির অপরাধে আট দোকানিকে ৮০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসমত আরা উপজেলা সদর বাজারে এবং সন্ধ্যার পর রানীগঞ্জ বাজারে অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা আদায় করেন।

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) :দৌলতপুর বাজারে অভিযান চালিয়ে দু'জনকে ছয় হাজার টাকা জরিমানা করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক শারমিন আক্তার। তারা হলেন আফজাল হোসেন ও আমিরুল ইসলাম।

জয়পুরহাট :ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক কালাই পৌর শহরে অভিযান চালিয়ে তিনটি দোকানে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোবারক হোসেন এ অভিযান পরিচালনা করেন।

সুনামগঞ্জ :গুজব ওঠার পর বিভিন্ন এলাকায় লবণ কিনতে ভিড় করেন ক্রেতা। তবে মুহূর্তেই বাজার থেকে লবণ উধাও হয়ে যায়। এই সুযোগে বেশি দাম হাঁকিয়েছেন অনেক ব্যবসায়ী।

শেরপুর (বগুড়া) :শহরের একাধিক স্থানে অভিযানও চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট লিয়াকত আলী সেখের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় পৌর শহরের হাটখোলা এলাকার আকাশ দত্তের পাইকারি দোকান ভাই ভাই স্টোরকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ ছাড়া রংপুর, বগুড়া, দিনাজপুর, সিলেটের ওসমানীনগর, মানিকগঞ্জ, পঞ্চগড়, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা, নাটোর, সুনামগঞ্জের তাহিরপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, গাইবান্ধা, পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি ও ঠাকুরগাঁওয়ে লবণ নিয়ে গুজব সৃষ্টি হয়েছে। চট্টগ্রামে ব্যবসায়ীদের বৈঠকে ডেকেছেন জেলা প্রশাসক। কেউ বেশি দামে বিক্রি করলে ৯৯৯ নম্বরে অভিযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে পুলিশ।