রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র

মোংলায় পৌঁছল রাশিয়ার নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর

প্রকাশ: ২২ অক্টোবর ২০২০

সমকাল প্রতিবেদক

মোংলায় পৌঁছল রাশিয়ার নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের জন্য নির্মিত নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর মোংলায় পৌঁছেছে সংগৃহীত

রাশিয়ার ভলগা থেকে ১৪ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের (এনপিপি) প্রথম ইউনিটের নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভেসেল এবং একটি স্ট্রিম জেনারেটর মোংলা বন্দরে পৌঁছেছে। বিশেষ এ সরঞ্জাম রাশিয়ার জাহাজ থেকে বিশেষ বার্জে স্থানান্তর করার পরে নদীপথে পদ্মাপাড়ে রূপপুর নৌবন্দরে নিয়ে আসা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নভেম্বরে নিউক্লিয়ার রিঅ্যাক্টর প্রেশার ভেসেল স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। তিনি বলেন, সরঞ্জাম দুটির চালান বাংলাদেশে সফলভাবে পৌঁছানো এক যুগান্তকারী ঘটনা। এটি রূপপুর প্রকল্পের অগ্রগতিতে এক মাইলফলক। রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. শৌকত আকবর জানান, আগামী ৫ নভেম্বর মোংলা বন্দর থেকে রিঅ্যাক্টরটি নদীপথে চাঁদপুর হয়ে ২১ নভেম্বর প্রকল্প এলাকা রূপপুর নৌবন্দরে এসে পৌঁছাবে।

রাশিয়ার নকশা অনুযায়ী নির্মিত হচ্ছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প। প্রকল্পের দুটি ইউনিটেই 'থ্রি প্লাস' প্রজন্মের সর্বাধুনিক 'ভিভিইআর-১২০০ রিঅ্যাক্টর' স্থাপিত হবে। রিঅ্যাক্টরগুলোর কার্যকাল ৬০ বছর, যা প্রয়োজনে আরও ২০ বছর বৃদ্ধি করা যাবে।

সূত্র জানায়, ভেসেল জেটিতে নামানোর জন্য ৩০৮ টন ধারণ ক্ষমতার দুটি ক্রেন বানানো হয়েছে। এই ক্রেন দুটি সংযোজন করার জন্য আরও ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার একটি ক্রেন আনা হচ্ছে। ভেসেল স্থাপনের জন্য চুল্লির কাজও প্রায় শেষ।

পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াটের এই বিদ্যুৎকেন্দ্রটি দেশে দীর্ঘমেয়াদে সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য ও মানসম্মত বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে বলে আশা করছে সরকার।