নারী শ্রমিককে উত্ত্যক্তকারী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের এক নেতাকে মারধর করায় গত বুধবার রাতে পাঁচ ঘণ্টা অবরুদ্ধ ছিল বরিশাল নগরী। সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত বরিশাল নগরী অচল করে দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

নগরীর দুটি বাস টার্মিনালে সড়কের ওপর এলোপাতাড়িভাবে বাস-ট্রাক রেখে দেওয়ায় ঢাকাসহ সারাদেশের সঙ্গে বরিশাল-কুয়াকাটা-ঝালকাঠি-বরগুনা-ভোলা-পিরোজপুর ও পটুয়াখালীর সড়ক যোগাযোগ বন্ধ ছিল। কয়েক হাজার যাত্রীসহ ঢাকাগামী লঞ্চগুলো আটকে রাখা হয় বরিশাল নৌবন্দরে। বন্ধ করে দেওয়া হয় নগরীর রাত্রীকালীন কাঁচাবাজারগুলো। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় স্যাটেলাইট চ্যানেল প্রচারও একে একে বন্ধ হতে থাকে। একই সময়ে আওয়ামী লীগের কয়েকশ নেতাকর্মী কাউনিয়া থানার সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন। সব মিলিয়ে পাঁচ ঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস পরিস্থিতিতে ছিলেন নগরবাসী।

জানা গেছে, নগরীর কাউনিয়ায় বিসিক শিল্প এলাকায় এক নারী শ্রমিককে উত্ত্যক্তকারী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধর করে পুলিশে সোপর্দ করার জেরে এমন কাণ্ড ঘটান ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। তবে এ পরিস্থিতির দায় নিচ্ছেন না আওয়ামী লীগ নেতারা। টানা পাঁচ ঘণ্টা নগরী অবরুদ্ধ থাকলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছিল নমনীয়।

নগরীতে অচলাবস্থা সৃষ্টি করে বিসিক শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি ও জুতা রপ্তানির বরিশালের একমাত্র প্রতিষ্ঠান ফরচুন সুজের মালিক মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করতে পুলিশকে বাধ্য করা হয় বলে জানা গেছে। রাত ৮টায় কাউনিয়া থানা পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করার পর রাত সোয়া ১১টায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও রূপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে অবরোধ তুলে নেওয়া হলে কয়েক কিলোটিমার দীর্ঘ আটকে পড়া যানবাহনগুলো একে একে গন্তব্যের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। আটকে থাকা ঢাকামুখী ছয়টি লঞ্চ রাত ১১টায় বরিশাল নৌবন্দর ত্যাগ করে।

টানা পাঁচ ঘণ্টা সাধারণ মানুষের এ দুর্ভোগের দায় কে নেবে জানতে চাইলে মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহমুদ বাবু বলেন, ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সোহাগ হাওলাদারকে মারধর করেছেন বিসিকের একজন ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় সোহাগসহ আওয়ামী লীগ নেতারা মামলা করতে গেলে কাউনিয়া থানা পুলিশ তাদের মূল্যায়ন করেনি। তাদের কয়েক ঘণ্টা বসিয়ে রাখা হয়েছে। নেতাকর্মীরা এটা মানতে না পারায় কিছুটা বিশৃঙ্খলা হয়েছে। এর দায় পুলিশ প্রশাসনকেই নিতে হবে।

রাত ৮টায় পুলিশ মামলা নেওয়ার পরও রাত ১১টা পর্যন্ত নগরী অচল করে রাখার বিষয়ে হাসান মাহমুদ বাবু বলেন, দলের নেতাকর্মীরা ব্যবসায়ী মিজানুর রহমানের গ্রেপ্তার চাচ্ছিলেন।

ফরচুন সুজের মালিক মিজানুর রহমান জানান, বুধবার সকালে তার কারখানার এক নারী শ্রমিককে বিসিক এলাকার মধ্যে উত্ত্যক্ত করেন সোহাগ। এ সময় সোহাগকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়। তারপর একটি শক্তি ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নিয়েছে তাকে হয়রানি করার জন্য।

পুলিশ কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান বলেন, পুরো বিষয়টি পুলিশ আইনিভাবে সমাধান করেছে।

এদিকে, বরিশাল নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ গতকাল বৃহস্পতিবার সার্কিট হাউসে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের উপস্থিতিতে এক কর্মশালায় বুধবার রাতের প্রসঙ্গে বলেন, 'আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। দলের এক নেতাকে মারধর করা হলেও পুলিশ মামলা নিতে রাজি হয়নি। এ জন্য দলের নেতাকর্মীদের চার ঘণ্টা থানায় বসে থাকতে হয়েছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না।'

মন্তব্য করুন