ডাকাতি, চুরি ও ছিনতাই চক্রের ৩৪ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ বুধবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের

গ্রেপ্তার করে। গতকাল বৃহস্পতিবার মিন্টো রোডে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার এএম হাফিজ আক্তার বলেন, শীতকালে বিভিন্ন মার্কেট এবং বাসাবাড়িতে ডাকাতি ও চুরি-ছিনতাই বেড়ে যায়। তবে এর প্রতিরোধে সার্বক্ষণিক গোয়েন্দারা মাঠে রয়েছে। ডিবির ৩২টি টিম একযোগে বুধবার রাজধানীতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে এসব চক্রের ৩৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

তিনি বলেন, সবাই সচেতন হলে চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের মতো অপরাধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করা যাবে। বিশেষ করে বাসায় নতুন দারোয়ান বা মালী নিয়োগ দেওয়ার সময় নিকটবর্তী থানাকে অবগত করা দরকার। তিনি বলেন, গ্রিল কেটে প্রবেশের ক্ষেত্রে চোর বাসার কিচেন ও বাথরুমের পেছনের অংশ ব্যবহার করার ঘটনা বেশি। বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে। এ ছাড়া যারা আর্থিকভাবে সচ্ছল তাদের বাসায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন করার কথাও বলেন ডিবির এই কর্মকর্তা।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো- রজব আলী, ইউনুস আলী, সাইফুল ইসলাম, মো. অপু, রাসেল ওরফে রুবেল, মুরাদ শিকদার, মো. নয়ন, মো. পারভেজ, সিরাজুল ইসলাম, মাইনুদ্দিন ওরফে কালু, রাকিব হাসান ওরফে কনক, মো. ইব্রাহিম, আমির হোসেন, মো. রনি, রুবেল হাসান, সাব্বির হোসেন, আরিফুল ইসলাম, অন্তর মিয়া, মামুন হোসেন, ওয়াজিব হোসেন, আসামি শাওন, মো. শাহিন, নয়ন মিয়া, সোহেল খান, বাদল বিশ্বাস, আহাম্মদ আলী মাতব্বর ওরফে পিচ্চি, মো. আলমগীর, রফিকুল ইসলাম, শাকিল ওরফে লাদেন, রবিন, হাবিবুর রহমান, নুর আলম বাবু ওরফে পিচ্চি বাবু, রমজান ও রুবেল হাওলাদার। তাদের সবার বয়স ১৯ থেকে ৪০ এর মধ্যে। তাদের কাছ থেকে ডাকাতি, চুরি ও ছিনতাইয়ে ব্যবহূত চাপাতি, চাকু, ছোরা, হাইড্রোলিক কাটার, তালা ভাঙার রডসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন