লক্ষ্মীপুরের রামগতি পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী সাহেদ আলী পটুর মনোনয়নপত্র আপিলেও বাতিল করা হয়েছে। গতকাল শনিবার আপিল শুনানি শেষে রিটার্নিং কর্মকর্তার নেওয়া সিদ্ধান্তকে সঠিক গণ্য করে ওই প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক এবং আপিল কর্তৃপক্ষ মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ। এর আগে ১৯ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে ঋণখেলাপির দায়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। পটু পৌর বিএনপির সভাপতি এবং পৌরসভার সাবেক মেয়র।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৯ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে ঋণখেলাপির অভিযোগে একজন মেয়র ও দু'জন কাউন্সিলর প্রার্থীসহ তিনজনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে মেয়র প্রার্থী সাহেদ আলী পটু ও ৮ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ছৈয়দ মুর্তাজা আল-আমিন প্রার্থিতা ফিরে পেতে জেলা প্রশাসক ও আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করেন। শনিবার আপিল শুনানিতে তাদের দু'জনেরই আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

বিএনপি প্রার্থী পটু দাবি করেন, ঋণখেলাপি নয় মর্মে স্থানীয় ব্যাংক থেকে নেওয়া প্রত্যয়নপত্র উপস্থাপন করেছেন তিনি। কিন্তু হয়রানি করার উদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যের অজুহাত দেখিয়ে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রার্থিতা ফিরে পেতে আমি উচ্চ আদালতে আপিল করব এবং বৈধ প্রার্থী হয়েই নির্বাচনে অংশ নেব।

এদিকে আপিলে বৈধতা না পাওয়া অপর কাউন্সিলর প্রার্থী পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান কাউন্সিলর ছৈয়দ মুর্তাজা আল-আমিনও উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানিয়েছেন।

রিটার্নিং অফিসার ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজিম উদ্দীন জানান, আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য এ নির্বাচনে ৫৪ জন বৈধ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের মধ্যে মেয়র পদে পাঁচ, সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৩৬ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৩ প্রার্থী রয়েছেন।

মন্তব্য করুন