আজ রোববার গাউসুল আজম হজরত মাওলানা শাহসুফি সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারির (কঃ) ১১৫তম ওরস শরিফ। চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে মাইজভাণ্ডার শরিফের 'দরবার-ই গাউসুল আজম মাইজভাণ্ডারী'র গাউসিয়া হক মনজিলে করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ওরস উদযাপিত হবে।

পৃথক বাণীতে ওরসের সফলতা কামনা করেছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইসলাম ধর্মের উদারতা ও শান্তির বাণী প্রচারের মাধ্যমে সাম্য, সম্প্রীতি এবং শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। ওরস উপলক্ষে প্রকাশিত ক্রোড়পত্রে বাণীতে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধে মাইজভাণ্ডার দরবার শরিফের ভূমিকা দেশের মানুষকে প্রেরণা জুগিয়েছিল।

ওরস আয়োজন কমিটির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হচ্ছে, আজ বাদ ফজর রওজা শরিফ গোসল ও গিলাফ চড়ানোর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। রাত ১০টায় মিলাদ মাহফিল ও আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন গাউসুল আজম মাইজভাণ্ডারির প্র-প্রপৌত্র, গাউসিয়া হক মনজিলের সাজ্জাদানশিন, আওলাদে রাসুল হজরত আল্লামা শাহসুফি সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভাণ্ডারি (মঃ)।

ওরস সুষ্ঠুভাবে আয়োজনে গত ১৩ জানুয়ারি গাউসিয়া হক মনজিলে ফটিকছড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সায়েদুল আরেফিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সিদ্ধান্ত হয়, দেশ-বিদেশ থেকে আসা আশেক-ভক্ত ও জায়েরিনদের সুবিধার্থে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা, যানবাহন নিয়ন্ত্রণ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন থাকবে। থাকবেন মনজিলের স্বেচ্ছাসেবকরাও।

ওরস উপলক্ষে আগামীকাল সোমবার পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা কর্মসূচি পালন করা হবে। মঙ্গলবার ফটিকছড়ি উপজেলার রেজিস্টার্ড এতিমখানাগুলোতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হবে। করোনা মহামারিতে বিপর্যস্ত ১০৫টি পরিবারের মাঝে 'দুর্যোগ প্রশমন সহায়তা' এবং 'সবার জন্য শিক্ষা প্রকল্প'-এর দ্বিতীয় পর্যায়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ৫৮টি প্রতিষ্ঠানে ৫০ লাখ টাকা দেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন