মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম বলেছেন, আমাদের সমাজে ৯৯% ধর্ষকই মনে করে, অপরাধ করে সে পার পেয়ে যাবে। প্রত্যেক অপরাধীকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর সংস্কৃতি গড়ে তুলতে হবে। তিনি আনুশকা হত্যার উদাহরণ দিয়ে আরও বলেন, পুলিশের ইনভেস্টিগেশন রিপোর্ট যেন কোনোভাবেই প্রভাবশালীদের দ্বারা প্রভাবিত না হয় এবং যথাসময় সম্পন্ন হয় সেই বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। বিচারের দীর্ঘসূত্রতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসনের অভাবে সমাজে ধর্ষণ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গতকাল শনিার রাজধানীর এফডিসিতে 'দিহানদের অবক্ষয়ের জন্য অভিভাবকদের দায়' নিয়ে এক ছায়া সংসদে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহীন আনাম এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, অভিভাবকদের উদাসীনতা, নৈতিক শিক্ষার অভাব, শিথিল সামাজিক বন্ধন, মাদকের সহজলভ্যতা, তথ্যপ্রযুক্তির অবাধ ব্যবহার, সুশাসনের ঘাটতি ইত্যাদি কিশোর অপরাধ বৃদ্ধি করছে।

কিশোর অপরাধ রোধে ১০ দফা সুপারিশ তুলে ধরা হয়। এগুলো হলো- সন্তানরা কার সঙ্গে মিশছে, কি করছে, কারা তাদের বন্ধু-বান্ধব, ঠিকমতো লেখাপড়া করছে কিনা, নিয়মিত ক্লাসে যায় কিনা এসব বিষয়ে অভিভাবকদের খোঁজ-খবর রাখতে হবে ২. সন্তানদের নৈতিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধ গড়ে তুলতে অভিভাবক ও শিক্ষকদের সচেষ্ট থাকতে হবে ৩. শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হতাশায় ভুগছে এ রকম শিক্ষার্থীদের কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা রাখতে হবে। প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিপীড়নবিরোধী সেল বাধ্যতামূলক করা উচিত। যে সেল সংশ্নিষ্ট দপ্তরে জবাবদিহি করতে বাধ্য থাকবে ৪. টিকটক, লাইকি, তথাকথিত মিউজিক ভিডিও ও মডেল বানানোর নামে যারা কিশোর-কিশোরীদের বিপথে নিয়ে যাচ্ছে তাদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে ৫. অপরাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে কিশোর-কিশোরীরা মিটিং-মিছিলে যাতে ব্যবহার না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে ৬. কিশোর গ্যাং প্রতিরোধে রাজনৈতিক সদ্বিচ্ছা ও রাজনৈতিক ঐকমত্য গড়ে তোলার পাশাপাশি সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে ৭. খেলাধুলা, চিত্তবিনোদন ব্যবস্থার পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অপব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে ৮. মাধ্যমিক পর্যায় থেকে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শক্রমে পাঠ্যপুস্তকে যৌনশিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে নজর দিতে হবে ৯. পারিবারিক কলহের কারণে সন্তানের প্রতি যাতে অবহেলা তৈরি না হয় সেদিকে মা বাবাকে খেয়াল রাখতে হবে ১০. আধুনিকতার নামে যাতে কিশোর-কিশোররা মাদক ও অনৈতিকতার সঙ্গে সম্পৃক্ত না হতে পারে সে বিষয়ে অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে।

প্রতিযোগিতায় ঢাকার ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজকে পরাজিত করে শরীয়তপুরের মজিদ জরিনা ফাউন্ডেশন স্কুল অ্যান্ড কলেজ বিজয়ী হয়। প্রতিযোগিতা শেষে অংশগ্রহণকারী দলের মধ্যে ক্রেস্ট, ট্রফি ও সনদপত্র প্রদান করা হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন ড. তাজুল ইসলাম চৌধুরী তুহিন, সাংবাদিক ইয়াসমিন রিমু, ড. শাহ আলম চৌধুরী, সাংবাদিক জিনিয়া কবির সূচনা ও সাংবাদিক নাদিয়া শারমিন।

মন্তব্য করুন