বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেছেন, গণমানুষের মানবিক ও গণতান্ত্রিক আকাঙ্ক্ষা চলচ্চিত্রে তুলে ধরতে হবে। চলচ্চিত্র একদিকে সামাজিক বাস্তবতাকে যেমন তুলে ধরছে, তেমনি মানুষের বেঁচে থাকার আকুতি আর স্বপ্নকে সেলুলয়েডে জীবন্ত করে তুলছে। সবচেয়ে শক্তিশালী শিল্পমাধ্যম হিসেবে চলচ্চিত্র নতুন মানবিকতা ও সমাজ-সভ্যতার দিশাও তুলে ধরতে পারে।

গতকাল শনিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচার সংহতি মিলনায়তনে 'চলচ্চিত্র ও জাতীয় মুক্তি' শীর্ষক আলোচনা সভায় সাইফুল হক এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, পুঁজি ও পুঁজিবাদ মানুষের সুকুমার বৃত্তি, স্নেহ, প্রেম, ভালোবাসাসহ জীবন-জীবিকার সমস্ত অনুষঙ্গকে কেনাবেচা আর মুনাফার বিষয়ে পরিণত করেছে। দেশের শাসকশ্রেণি ও নীতিনির্ধারকরাও আজ পুঁজিবাদের ব্যক্তিকেন্দ্রিক ভোগসর্বস্ব সংস্কৃতির সহযোগী হয়ে উঠেছেন। এই সুযোগে সমাজে নিয়তিনির্ভর পশ্চাৎপদ ধ্যানধারণা জেঁকে বসেছে।

সাইফুল হক বলেন, এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে রাজনৈতিক আন্দোলনের পাশাপাশি চলচ্চিত্রসহ বিভিন্ন শিল্পমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। এই বন্ধ্যা সময়ে সাংস্কৃতিক আন্দোলন মানুষকে আবার জাগিয়ে তুলতে পারে, সমাজ পরিবর্তনে মানুষকে আশাবাদী করে তুলতে পারে, জনগণের মুক্তি ঘটাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব খায়রুল বাসার হিরনের সভাপতিত্বে ও সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় মূল ভাবনা পাঠ করেন চলচ্চিত্র নির্মাতা আজিজ টিপু। আলোচনা করেন মাসিক জনগণতন্ত্র পত্রিকার সম্পাদক বহ্নিশিখা জামালী, সংহতি সংস্কৃতি সংসদের সভাপতি ইফতেখার আহমেদ বাবু, নাট্য নির্দেশক ও অভিনেতা শাহজাহান শোভন, নৃত্যকার পরান বাবু, রিয়াজ রাজ প্রমুখ।

মন্তব্য করুন