বিদেশি অদক্ষ শ্রমিক আনা বন্ধ করতে হবে

মানবসম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক সেমিনারে বক্তারা

প্রকাশ: ২৪ জানুয়ারি ২০২১     আপডেট: ২৪ জানুয়ারি ২০২১

সমকাল প্রতিবেদক

বিদেশি অদক্ষ শ্রমিক আনা বন্ধ করতে হবে

ছবি: ফাইল

দেশীয় দক্ষ জনবল থাকলে কোনোভাবেই তার বদলে বিদেশি জনবল নিয়োগ নয়- এমন নীতি ও তার প্রয়োগ নিশ্চিত করা জরুরি। বিশেষ করে বিশেষ সুবিধায় ইস্যু করা এ-৩ ভিসার আওতায় বিদ্যুৎ, জ্বালানিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে অদক্ষ শ্রমিক আনা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করতে হবে। আর দেশে দক্ষ জনবল পাওয়া না গেলে বিদেশিদের নিয়োগ দিতে হবে ওয়ার্ক ভিসার আওতায়। সর্বোপরি একটি সমন্বিত পরিকল্পনার আওতায় দক্ষ জনবলের ওপর একটি তথ্যভান্ডার গড়ে তুলতে হবে। আর শিল্প, সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ত্রিপক্ষীয় উদ্যোগের মাধ্যমে চাহিদানির্ভর দক্ষ জনবল গড়ে তুলতে হবে। আর এটার জন্য একটি পৃথক জনশক্তি উন্নয়ন মন্ত্রণালয় গঠন সময়ের দাবি। না হলে উচ্চ আয়ের দেশের কাতারে ওঠার দৌড়ে বাংলাদেশ পিছিয়ে যাবে।

এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার ম্যাগাজিন আয়োজিত 'ইপি টকস অন হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট : স্ট্যাটাস অব বাংলাদেশ অ্যান্ড ওয়ে ফরোয়ার্ড' অংশ নিয়ে বক্তারা উপরের মতামত তুলে ধরেছেন। এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার সম্পাদক মোল্লাহ আমজাদ হোসেনের উপস্থাপনায় আলোচনায় অংশ নেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনভারমেন্টাল সায়েন্স ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ হোসেন, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের যুগ্ম সচিব অপারেশন ড. মোহা. শের আলী, দীপন গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইঞ্জিনিয়ার রাশেদ মাহমুদ, স্যাপকন বিডির পরিচালক মোসাদ্দেক শহীদ লাইলাক ও ইপি কনটিবিউটিং এডিটর ইঞ্জিনয়িার খন্দকার আবদুল সালেক।

গোলাম সাব্বির সাত্তার চাহিদাভিত্তিক শিক্ষা চালুসহ ৮ দফা সুপারিশ উপস্থাপন করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিপুল ব্যয়ে ভবন বানালেও বিশ্বমানের ল্যাব বানাচ্ছে না। রাষ্ট্রকে সঠিক নীতি গ্রহণ করতে হবে এবং সদিচ্ছা দিয়ে তার বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ হোসেন বলেন, আমাদের মন্ত্রণালয় না থাকলে দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য একটি জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রয়েছে। বুয়েটসহ আমাদের কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে যারা আসছেন তারা সরাসরি কাজ করতে সক্ষম হচ্ছেন না।

ড. মোহা. শের আলী বলেন, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ইনস্টিটিউটকে কীভাবে আন্তর্জাতিকমানের করা যায় তার ওপর সুপারিশ দেওয়ার জন্য কমিটি কাজ করছে। রিপোর্ট পাওয়ার পর এটিকে ঢেলে সাজানো হবে।

ইঞ্জিনিয়ার রাশেদ মাহমুদ দেশীয় কর্মশক্তিকে পুরোপুরি কাজে লাগাতে হলে দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে মালয়েশিয়া, ভারতসহ অন্যান্য দেশের মতো নীতিগত সমর্থন দেওয়া জরুরি বলে মন্তব্য করেন।

মোসাদ্দেক শহীদ দেশে দক্ষ জনশক্তি তৈরি এবং ধারাবাহিকভাবে তা কাজে লাগানোর জন্য একটি পৃথক জনসম্পদ মন্ত্রণালয় স্থাপনের প্রস্তাব দিয়ে বলেন, জনশক্তি উন্নয়নের সব কাজ সমন্বিতভাবে করার কোনো বিকল্প নেই।

খন্দকার আবদুস সালেক বলেন, দেশে দক্ষ জনবল থাকলে ওই কাজে কোনোভাবেই সরকারি বা বেসরকারি খাতে বিদেশিদের নিয়োগ দেওয়ার বিষয় আইন করে বন্ধ করতে হবে।