মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় সাফল্য পাওয়া কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের যমজ ভাই আরিফ ও শরীফের পাশে দাঁড়িয়েছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান। এ ছাড়া স্থানীয় বিভিন্ন ব্যক্তিও সহায়তায় এগিয়ে আসছেন।

দুই ছেলে আরিফুল ইসলাম ও শরীফুল ইসলাম মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর থেকেই তাদের পড়ালেখার খরচ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন অটোরিকশাচালক বাবা বিল্লাল হোসেন। তার বাড়ি মনোহরগঞ্জ উপজেলার হাসনাবাদ ইউনিয়নের মানরা গ্রামে।

আরিফ-শরীফের অর্থনৈতিক সমস্যার কথা জানতে পেরে বুধবার জেলা প্রশাসক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহেল রানার মাধ্যমে মেধাবী দুই সহোদরের হাতে ২০ হাজার টাকার আর্থিক অনুদান তুলে দেন। পাশাপাশি তাদের পড়াশোনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত সার্বিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাসও দেন।

শুধু জেলা প্রশাসকই নন, আরিফ-শরীফদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন অন্য ব্যক্তিরাও। উপজেলার খরখরিয়া গ্রামের ডা. শামসুল হুদা কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যরাও আছেন এ দুই ভাইয়ের পাশে। ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক ও মনোহরগঞ্জ সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক শরিফ উদ্দিন আহমেদ জানান, ট্রাস্টের সহসভাপতি জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. গিয়াস উদ্দিনের স্ত্রী ডা. নাজনীন উম্মে জাকিয়া ব্যক্তিগতভাবে তাদের ভর্তি ও বই কেনার জন্য ৩০ হাজার টাকা দেবেন। এ ছাড়া তাদের পড়ালেখা শেষ না হওয়া পর্যন্ত ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হবে।

বিল্লাল হোসেন বলেন, 'সবার সহযোগিতায় আমার ছেলেরা এ পর্যন্ত এসেছে। বর্তমানে ছেলেদের মেডিকেলে পড়া নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন ছিলাম। ঠিক এমন সময় পাশে দাঁড়াতে শুরু করেছেন ডিসি স্যারসহ কিছু মানবিক মানুষ। আমার ছেলেদের জন্য দোয়া করবেন, তারা যেন চিকিৎসক হয়ে দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করতে পারে।'

মন্তব্য করুন