কুমিল্লায় বিসিক শিল্পনগরীতে ভয়াবহ বিস্টেম্ফারণ হওয়া সেই ওষুধ কারখানা আপাতত বন্ধই থাকছে। জেলা প্রশাসক গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারখানাটির কোনো কার্যক্রম পরিচালিত হবে না। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিসিক কুমিল্লার ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম।

এদিকে, জেলা প্রশাসক গঠিত তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করবে শনিবার থেকে। বৃহস্পতিবার সকালে এ নিয়ে আলোচনা করেছেন কমিটির সদস্যরা।

গত বুধবার দুপুরে বিস্টেম্ফারণ হওয়া কারখানাটি পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমান সর্দারকে প্রধান করে তিন সদস্যদের তদন্ত কমিটি গঠনের কথা গণমাধ্যমকে জানান। এ কমিটির অপর সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সোহান সরকার ও বিসিকের ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম। পরে এ কমিটিতে কুমিল্লা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক মো. জসীম উদ্দিনকে সংযুক্ত করে মোট চার সদস্যবিশিষ্ট কমিটি করা হয়। কী কারণে এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে, তা তদন্ত করে ওই কমিটিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলেন জেলা প্রশাসক।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিসিক কুমিল্লার ডিজিএম জাহাঙ্গীর আলম সমকালকে বলেন, তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বর্তমানে অসুস্থ। তাই বৃহস্পতিবার সকালের আলোচনায় সিদ্ধান্ত হয়েছে তার পরিবর্তে কমিটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন। আমাদের কমিটির তদন্ত আগামী শনিবার সকাল থেকে শুরু হবে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত ওই কারখানা কর্তৃপক্ষকে সব কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় আহতরা এখন আশঙ্কামুক্ত। তাদের চিকিৎসা চলছে বলে জানান তিনি। গত বুধবার সকাল ১০টার দিকে নগরীর রানীরবাজার এলাকায় অবস্থিত বিসিক শিল্পনগরীতে বেঙ্গল ড্রাগস অ্যান্ড কেমিক্যাল ওয়ার্কস (ফার্মাসিউটিক্যালস) নামের ওষুধ কারখানা ভবনের দ্বিতীয় তলায় ওই বিস্টেম্ফারণ হয়। এতে তিনজন গুরুতর আহতসহ অন্তত সাতজন আহত হয়েছেন।

মন্তব্য করুন