'করোনাসহিষুষ্ণ গ্রাম' সৃষ্টির কৌশল কাজে লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশের প্রশিক্ষিত স্বেচ্ছাসেবীরা 'করোনাভাইরাস-সহিষুষ্ণ গ্রাম' সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে। এই উদ্যোগের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের লক্ষ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার ওই সংস্থার উদ্যোগে একটি অনলাইন সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। এতে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান অনলাইন সংলাপে বলেন, 'হাঙ্গার প্রজেক্ট এক হাজার ২০০ গ্রামে করোনা নিয়ে কাজ করছে। জরিপের ফলাফল থেকে প্রমাণ হচ্ছে, তাদের কৌশলটা কাজে লেগেছে। আমরা খুবই কঠিন একটি সময় পার করছি, তাই বিভিন্নভাবে চেষ্টা করে যেতে হবে।'

তিনি আরও বলেন, সরকারকে একটা কেন্দ্রীয় জায়গা থেকে কাজ করতে হচ্ছে। অবশ্যই কতটুকু ভালো করছে সেটা বিচারাধীন থাকবে, সমালোচনা থাকবে। এটাই হওয়া উচিত। এর মধ্যে শিক্ষণীয় অনেক কিছু থাকে।

দি হাঙ্গার প্রজেক্টের গ্লোবাল ভাইস প্রেসিডেন্ট ও কান্ট্রি ডিরেক্টর ড. বদিউল আলম মজুমদার সংলাপ সঞ্চালনা করেন। তিনি বলেন, আমরা ৪১টি ইউনিয়নের ৭৯টি স্পটে প্রায় সাত হাজার মানুষের মধ্যে সার্ভে করেছি।

এতে দেখা গেছে, যেসব গ্রামে আমাদের প্রচার, জনসচেতনতা চালিয়েছি, সেসব স্থানে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে অন্তত ৬১ শতাংশ

মাস্ক পরেছেন। আর যেসব স্থানে প্রচার হয়নি, সেসব এলাকায় এর পরিমাণ ৩১ শতাংশ।

মন্তব্য করুন