নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের ওপর হামলা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীরা এ হামলা চালিয়েছে।

এদিকে, খিজির হায়াত খানের ওপর হামলাকারীদের গ্রেপ্তারে পুলিশ প্রশাসনকে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাগ্নে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুব রশিদ মঞ্জু।

খিজির হায়াত খান বলেন, বৃহস্পতিবার ইফতারের পর তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে রিকশা করে বসুরহাট বাজারে যাচ্ছিলেন। বদু কেরানীর পুল এলাকায় কাদের মির্জার অনুসারী ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রাসেলের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তার রিকশা থামিয়ে তাকে কিল, ঘুষি মারে ও লাঠি দিয়ে পেটায়। রিকশাচালককেও মারধর করা হয়। পরে আশপাশের লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

হামলার ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতেই কাউন্সিলর রাসেলকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের বিরুদ্ধে কোম্পানীগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন খিজির হায়াত খান।

কাউন্সিলর মো. রাসেল হামলার ঘটনা অস্বীকার করেছেন। তার দাবি, ঘটনায় সময় তিনি এলাকায় ছিলেন না, নানার বাড়িতে ছিলেন।

রাসেল বলেন, 'আমি মেয়র আবদুল কাদের মির্জার সৈনিক। খিজির হায়াত খান আমার চাচা। তিনি আমাকে অনেক দিন যাবত ওনার দলে নেওয়ার জন্য চাপ দিয়ে আসছেন। না যাওয়াতে প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।'

এদিকে, গতকাল শুক্রবার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুব রশিদ মঞ্জু পুলিশ প্রশাসনের উদ্দেশে বলেন, খিজির হায়াত খানের ওপর হামলাকারীদের আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার করতে হবে। অন্যথায় আমরা রাস্তায় নামব, কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলব।

মন্তব্য করুন