বাড়ির পাশেই একটি আবাসিক প্রকল্পে চলছে নির্মাণ কাজ। রাতে প্রায়ই সেখান থেকে কান্নার শব্দ ভেসে আসে। কয়েকদিন চেষ্টা করেও সেই কান্নার উৎস খুঁজে পাননি রাজধানীর মিরপুর-২ নম্বর সেকশনের এক বাসিন্দা। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি পুলিশের ফেসবুক পেজের ইনবক্সে জানান তিনি। এরপর পুলিশের অনুসন্ধানে জানা যায়, জাহাঙ্গীর নামে এক ব্যক্তি পরিবার নিয়ে ওই নির্মাণাধীন ভবনে থাকেন। প্রায় রাতেই তিনি সন্তানদের হাত-পা বেঁধে পেটাতেন। সেই কান্নার শব্দই শুনতে পেতেন আশপাশের লোকজন। পরে তাকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক সোহেল রানা জানান, ওই ব্যক্তির বার্তা পেয়ে পুলিশের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ শাখা মিরপুর থানার ওসি মোস্তাজিরুর রহমানকে এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেন। পরে ওসির তত্ত্বাবধানে মিরপুর থানার এসআই নাজমুল হক ও আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে সাদা পোশাকের একটি দল ওই এলাকায় যায়। তারা পরপর দুই রাত সম্ভাব্য কয়েকটি ভবনে খোঁজ নেওয়ার এক পর্যায়ে রহস্যের জট খুলতে সক্ষম হন।

পুলিশ জানায়, একটি হাউজিং কমপ্লেক্সের ভেতরে নির্মাণাধীন ভবনে স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে থাকতেন জাহাঙ্গীর। তার গ্রামের বাড়ি ভোলার চরফ্যাসনে। প্রায় দিনই তিনি সন্তানদের মারধর করতেন। স্ত্রী ও সন্তানদের অযোগের ভিত্তিতে তাকে আটক করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। পাশাপাপরিবারটির সম্মতিক্রমে তাদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন