ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কাটার প্রতিবাদে কয়েকদিন ধরেই আন্দোলন করছে বিভিন্ন সংগঠন। গতকাল শনিবারও কবি, লেখক, সাহিত্যিক, চিত্রশিল্পী ও বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। মানববন্ধন, গাছ রোপণ, কবিতা আবৃত্তি, প্রতিবাদী গান ও গাছকে জড়িয়ে ধরে ভালোবাসা প্রদর্শন করেছে তারা। 'রেস্তোরাঁ নয় অক্সিজেন চাই', 'গাছ কেটে উন্নয়ন চাই না' এবং 'আমরা ধ্বংসের বিরুদ্ধে, সৃষ্টির পক্ষে'- এমন বহু প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করা হয় গতকাল।

এদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে মানববন্ধন করেছে পরিবেশবাদী সংগঠন সবুজ আন্দোলন। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সামনের সড়কে মানববন্ধন করেছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল তরুণ শিক্ষক প্রতিবাদ ও গাছ লাগানো কর্মসূচি পালন করেছেন।

সাংবাদিক ও কবি চপল মাহমুদ ব্যানার ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অবস্থান নেন। আন্তর্জাতিক সংস্থা দ্য ইউনিয়নের কারিগরি পরামর্শক অ্যাডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম তাহিন বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীদের নিয়ে উদ্যানে আসেন গাছের জন্য ভালোবাসা জানাতে। এ সময় তারা লাল ক্রস চিহ্নিত গাছগুলোকে জড়িয়ে ধরেন।

উদ্যানে লাল ক্রস দেওয়া গাছগুলো বাঁচাতে ভিন্নধর্মী উদ্যোগ নিয়েছে পরিবেশবাদী সংগঠন 'গ্রিন সেভার বাংলাদেশ'। তারা প্রতিটি গাছকে একেকজন খেতাবপ্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধার নামে নামকরণ করেছে।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ অবিলম্বে বন্ধ করার দাবিতে গতকাল বিবৃতি দিয়েছেন বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সসহ (বিআইপি) ১৩টি সংগঠনের নেতারা। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ ১১টি সাংস্কৃতিক সংগঠন যৌথ বিবৃতিতে বলেছে, ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যাতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের ব্যঞ্জনা উপলব্ধি করতে পারে, তার জন্যই এই বিশাল চত্বর বা উদ্যানের অবয়ব সংরক্ষণ করা জরুরি। বিবৃতি দেওয়া সংগঠনগুলো হলো- সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশান, বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ, জাতীয় কবিতা পরিষদ, বাংলাদেশ পথনাটক পরিষদ, বাংলাদেশ গণসংগীত সমন্বয় পরিষদ, বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা, বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ, আইটিআই, বাংলাদেশ কেন্দ্র ও বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার।

সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন এক বিবৃতিতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চলমান উন্নয়ন প্রকল্প বন্ধ করার দাবি জানিয়েছে।

এদিকে স্বাধীনতা স্তম্ভ নির্মাণ (তৃতীয় পর্যায়) প্রকল্পের পরিচালক হাবিবুল ইসলাম বলেছেন, মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এখানে প্রায় এক হাজার গাছ লাগানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নকে বাধাগ্রস্ত ও প্রশ্নবিদ্ধ করতে একটি মহল নানা ধরনের বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

মন্তব্য করুন