বাগেরহাটে টিকটক বানানো নিয়ে কলহের জেরে স্ত্রীকে হত্যার পর থানায় আত্মসমর্পণ করেছে এক যুবক। শনিবার রাতে বাগেরহাট পৌরসভার দশানী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম শ্রাবণী আক্তার সুমা (২০)। তিনি বাগেরহাট শহরের সিংড়াই গ্রামের করিম বক্সের মেয়ে। আত্মসমর্পণকারী যুবকের নাম আব্দুল্লাহ নাহিন শান্ত। সে দশানী এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্য গোলাম মোহাম্মদের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শান্ত ঢাকার একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করত। করোনা পরিস্থিতিতে সম্প্রতি তার চাকরি চলে যাওয়ায় সে বাড়ি আসে। তার স্ত্রী টিকটক বানাতেন। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে শান্তর ঝামেলা হয়। এরপর স্ত্রী রাগ করে বাবার বাড়িতে চলে যান। শনিবার শান্ত তার স্ত্রীকে ফোন করে বাড়িতে ডেকে নেয়। এদিন বাড়িতে আর কেউ ছিল না। মাগরিবের নামাজের পর তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে শান্ত স্ত্রীকে কিলঘুষি মেরে ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে পরে থানায় যায়।

নিহতের বড় ভাই মো. রাসেল বলেন, 'শান্ত আমার বোনকে হত্যা করবে জানিয়ে আমার বোন আমাকে বিকেল ৫টার দিকে মেসেজ দেয়। কিন্তু মেসেজটি আমি দেখি রাত ৮টার দিকে। ছুটে গিয়ে দেখি শান্ত আমার বোনকে হত্যা করেছে। আমি বোন হত্যার বিচার চাই।'

বাগেরহাট মডেল থানার ওসি কে এম আজিজুল ইসলাম বলেন, স্ত্রীকে হত্যা করে শান্ত নামের এক যুবক থানায় আত্মসমর্পণ করেছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। লাশ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন