কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এসেছে একটি মৃত ডলফিন। গতকাল রোববার সকালে লেম্বুরবন সৈকতে এটিকে দেখতে পান জেলেরা। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ১০ ফুট।

সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য নিয়ে কাজ করা সংস্থা ওয়ার্ল্ড ফিশ বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধি দল খবর পেয়ে ডলফিনটি পরিদর্শন করেছে। ওই প্রতিনিধি দলের প্রধান (ইকোফিস-২) প্রকল্পের সহকারী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি জানিয়েছেন, ডলফিনটির গায়ে আঘাতে চিহ্ন রয়েছে। এর লেজটি জালের রশি দিয়ে বাঁধা।

কলাপাড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা অপু সাহা বলেন, স্থানীয়ভাবে ডলফিনটির মরদেহ সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই। তাই পচে যাতে দুর্গন্ধ না ছড়ায় তাই বন বিভাগ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা রোববার সৈকতে সেটি মাটিচাপা দিয়ে রেখেছে।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ টেকনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সাজেদুল হক বলেন, তিমি, ডলফিন, শুশুক ইত্যাদি মাছ নয়। এরা সেটেশান প্রাণী গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত।

পটুয়াখালী বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, সাগরে সেটেশানদের নিরাপদ আবাসস্থল তৈরির জন্য সীমানা নির্ধারণ করা জরুরি।

মন্তব্য করুন