গত ২৫ এপ্রিল দৈনিক সমকালে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন কোম্পানি লিমিটেডের (এপিএসসিএল) সিভিল বিভাগে (পূর্ত বিভাগে) বিভিন্ন কাজের 'ই-জিপি দরপত্রে তথ্য ফাঁসের অভিযোগ' শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে এপিএসসিএল কর্তৃপক্ষ। গত ২৯ এপ্রিল প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপক (ক্রয়) স্বাক্ষরিত প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে- 'সংবাদটি যথাযথ নয়'। প্রতিষ্ঠানটির পূর্ত কাজের প্রাক্কলন জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিদ্যুৎ বিভাগ কর্তৃক নির্ধারিত রেট শিডিউল বই অনুসারে করা হয়ে থাকে। কাজেই অভিজ্ঞ কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক রেট শিডিউল বই অনুসরণ করে প্রাক্কলন মেলানো সম্ভব। তাই দরপত্রের মূল প্রাক্কলন কয়েকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছে ফাঁস করে দেওয়ার অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত নয়। অভিযোগের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে- এমনটি অবহিত করার পরও প্রতিবেদনটি প্রকাশ করার প্রয়োজনীতা ছিল না। এতে প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে। প্রতিবাদলিপিতে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে সচেষ্ট হওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

প্রতিবেদকের বক্তব্য :প্রকাশিত প্রতিবেদনটি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক (ক্রয়) বরাবর ১৬ জন ঠিকাদারের স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ এবং নির্বাহী পরিচালক (কারিগরি) বরাবর অপর একজন ঠিকাদারের একই অভিযোগের ভিত্তিতে করা হয়েছে। প্রতিবেদক এ ব্যাপারে এপিএসসিএল কর্তৃপক্ষের এমডি ও ব্যবস্থাপকের (ক্রয়) সঙ্গেও কথা বলেছেন। তারা ঠিকাদারের অভিযোগ পেয়েছেন বলে স্বীকার করেছেন এবং এ-সংক্রান্ত তাদের মতামত যথাযথ ও সুস্পষ্টভাবে প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদন প্রকাশের আগে অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে কোনো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়নি। প্রতিবেদন প্রকাশের পর গত ২৯ এপ্রিল এপিএসসিএলের নির্বাহী প্রকৌশলী নর্থ (মেকানিক্যাল) হারিস মোহাম্মদ ওয়াহেদীকে প্রধান করে তিন সদস্যের অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঠিকাদারের লিখিত অভিযোগের কপিসহ বিভিন্ন তথ্যপ্রমাণ সমকালের কাছে রয়েছে। ওই প্রতিবেদনে প্রতিবেদকের নিজস্ব কোনো মতামত নেই।

মন্তব্য করুন