কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দান সিন্দুক থেকে এবার দুই কোটি ৩৩ লাখ ৯৩ হাজার ৭৭৯ টাকা পাওয়া গেছে, যা দান সিন্দুক থেকে পাওয়া দানের হিসাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এই নগদ টাকা ছাড়াও দান হিসেবে বিভিন্ন বৈদেশিক মুদ্রা ও বেশকিছু স্বর্ণালংকার পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার সকাল ৯টায় মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলার পর বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত টাকা গণনা শেষে এই হিসাব পাওয়া যায়।

এর আগে সর্বশেষ গত ২৩ জানুয়ারি দান সিন্দুক খোলা হয়েছিল। তখন এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ দুই কোটি ৩৮ লাখ ৫৫ হাজার ৫৪৫ টাকা পাওয়া গিয়েছিল। সাধারণত তিন মাস পর পর পাগলা মসজিদের দান সিন্দুক খোলা হয়। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে দান সিন্দুক খোলার সময়ের ব্যবধান বাড়ানো হয়েছে। এবার চার মাস ২৬ দিন পর এসব দান সিন্দুক খোলা হয়েছে। করোনাকালে এর আগে গত বছরের ২২ আগস্ট ছয় মাস সাত দিন পর এবং গত ২৩ জানুয়ারি পাঁচ মাস চার দিন পর দান সিন্দুক খোলা হয়েছিল।

পাগলা মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ এবং কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ফরিদা ইয়াসমিনের তত্ত্বাবধানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উবায়দুর রহমান সাহেল, মো. জুলহাস হোসেন সৌরভ, মো. ইব্রাহীম ও মাহামদুল হাসান, পাগলা মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি খলিলুর রহমান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শওকত উদ্দীন ভূঞা, রূপালী ব্যাংকের এজিএম মো. রফিকুল ইসলাম প্রমুখ টাকা গণনার কাজ তদারকি করেন।

সংশ্নিষ্টরা জানান, সকাল ৯টায় জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে মসজিদের আটটি দান সিন্দুক খোলা হয়। সিন্দুক থেকে টাকা বের করে প্রথমে বস্তায় ভরা হয়। এবার ১২ বস্তা টাকা হয়েছে। এরপর শুরু হয় দিনব্যাপী টাকা গণনা। এতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদ-মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক, রূপালী ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী, আনসার এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্য ও সার্বক্ষণিক দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ দুই শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

বিষয় : পাগলা মসজিদের দান

মন্তব্য করুন