রাজধানীর শান্তিনগরে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে এক ব্যক্তিকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়ের অভিযোগে পুলিশের দুই সদস্যসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত সোমবার পল্টন থানা পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার দুই পুলিশ সদস্য হলেন সূত্রাপুর থানার এসআই রহমত উল্লাহ ও এএসআই রফিকুল ইসলাম। তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। অপর দু'জন হলো ফরহাদ হোসেন ও হাসিব হাসান।

পুলিশের মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার আবুল হাসান সমকালকে বলেন, তদন্ত চলছে; শেষ না হওয়া পর্যন্ত আর কিছু বলা সম্ভব নয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নাজমুল হক সুমন নামে শান্তিনগরের এক বাসিন্দা গত রোববার পল্টন থানায় একটি মামলা করেন। এজাহারে দু'জনকে আসামি করা হয়। তারা হলো ফরহাদ হোসেন ও হাসিব হাসান। এ ছাড়া অজ্ঞাত আসামি করা হয় দু'জনকে। তারা ডিবির সদস্য হিসেবে পরিচয় দিয়েছিলেন নাজমুলের কাছে। এজাহারে বলা হয়- আসামি ফরহাদ ও হাসিব বাদী নাজমুলের পূর্বপরিচিত। ১৪ জুন রাতে তার শান্তিনগরের বাসায় দুই ব্যক্তি গিয়ে ডিবি পুলিশের পরিচয় দেন। এক পর্যায়ে তারা বাসার আসবাবপত্র ওলটপালট করতে থাকেন। তাদের একজন পকেট থেকে ইয়াবা ট্যাবলেট টেবিলে রেখে বলেন, নাজমুল ইয়াবার ব্যবসা করেন এবং আইনগত ব্যবস্থা নেবেন বলে হুমকি দেন। মামলা থেকে বাঁচতে টাকা দাবি করেন তারা। ভয়ে ঘরে থাকা ৫৫ হাজার টাকা তাদের হাতে তুলে দেন তিনি। এর পরই তাদের একজন ফোন করে ফরহাদকে ডাকেন সেখানে। ঘটনার দু'দিন পর হাসিব হাসানকে নিয়ে ওই বাসায় আসে ফরহাদ। ডিবি পরিচয় দেওয়া ওই দু'জনকে আরও টাকা দেওয়ার জন্য চাপ দেন তারা। পরে নাজমুল জানতে পারেন, এটি ছিল টাকা আদায়ের নাটক।

বিষয় : ইয়াবা

মন্তব্য করুন