মায়ের মৃত্যুতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে সান্ত্বনা দিতে তার বাসায় গেলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে শহরের দেওভোগে 'চুনকা কুটির'-এ কিছু সময় অবস্থান করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান তিনি। এ সময় তিনি মেয়রের মাথায় হাত বুলিয়ে তার মাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন।

গত রোববার বিকেলে মেয়র আইভীর মা মমতাজ বেগম ইন্তেকাল করেন। একই দিন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন শামীম ওসমানের স্ত্রী সালমা ওসমান লিপি। স্ত্রীর চিকিৎসায় ব্যস্ত থাকায় শামীম ওসমান মেয়রের মায়ের জানাজায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। স্ত্রী লিপি কিছুটা সুস্থ হলে গতকাল শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জে ছুটে আসেন এবং মেয়রের প্রয়াত মা মমতাজ বেগমের কবর জিয়ারত করেন। এরপর মাসদাইর কবরস্থান থেকে স্থানীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে আইভীর বাড়িতে যান তিনি।

প্রয়াত মমতাজ বেগমকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে শামীম ওসমান বলেন, "চাচি (মমতাজ বেগম) আল্লাহওয়ালা মানুষ ছিলেন। তিনি আমাকে মায়ের মতো আদর করতেন। ৯৬ সালে এমপি হওয়ার পর আমি চাচির দোয়া নিতে এসেছিলাম। ওই সময় তিনি নিজ হাতে আমাকে খাইয়ে দিয়েছিলেন। ৯৬ সালেই আমি আলী আহাম্মদ চুনকা (মেয়রের বাবা) চাচার বাড়ির সামনের রাস্তাটি 'আলী আহাম্মদ চুনকা' সড়ক হিসেবে নামকরণ করি।" এ সময় শামীম ওসমানের সঙ্গে ছিলেন তার অনুসারী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর সোহেল আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, মহানগর কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান লিটন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী প্রমুখ। পরে মেয়র আইভী আগামীকাল বৃহস্পতিবার বাদ আসর তার প্রয়াত মায়ের জন্য দোয়া ও মিলাদে শামীম ওসমানসহ উপস্থিত সবাইকে দাওয়াত করেন।

মন্তব্য করুন