সদ্য ঘোষিত ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির কমিটি ঘোষণা নিয়ে একদিকে যেমন চলছে উচ্ছ্বাস, অন্যদিকে হতাশা ও ক্ষোভের মধ্যে চলছে দোষারোপের রাজনীতি। নতুন কমিটি ঘিরে ঢাকা মহানগর উত্তরে নেতাকর্মীরা আনন্দের জোয়ারে ভাসলেও দক্ষিণে পদবঞ্চিত ও অবমূল্যায়িত নেতারা হতাশায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছেন।

এর মধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের নেতা প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছেন। আবার সংগঠনের সাবেক সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের বাসায় গোয়েন্দা পুলিশের পরিচয়ে দু'দফায় খোঁজখবর করা নিয়েও চলছে জল্পনা-কল্পনা। নানা ঘটনায় বাড়ছে সন্দেহ আর অবিশ্বাস।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার আগে ও পরে দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে মহানগরের প্রভাবশালী নেতাদের সতর্ক করে বলা হয়েছে, নতুন কমিটিকে সহযোগিতা না করে কেউ যদি কোনো বিরূপ মন্তব্য করে, তাকে বহিস্কার করা হবে। যদিও বাদপড়া সক্রিয় ও ত্যাগী নেতাদের নতুন ক্ষোভ প্রশমনে তাদের অন্তর্ভুক্ত করে একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেওয়া হয়েছে। অসন্তোষ দূর করতেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

তবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করা মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন ক্ষোভ সামাল দিতে পারেননি। তিনি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে লন্ডনে পাড়ি জমান।

যদিও ইশরাকের ব্যক্তিগত সহকারী সুজন মাহমুদ বলেন, সোমবার ভোরের ফ্লাইটে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান।

তবে অপর সূত্র নিশ্চিত করেছে, ইশরাকের মূল গন্তব্য যুক্তরাজ্য। সেখানে তিনি তারেক রহমানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার চেষ্টা করবেন।

এদিকে, মঙ্গলবার গভীর রাতে ঢাকা মহানগর বিএনপি দক্ষিণের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের খোঁজে তার বাসার গেটে দু'দফা পুলিশ গিয়েছে বলে তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন। এর পেছনে দলের কোনো কোনো নেতার ইন্ধন রয়েছে বলে তাদের অভিযোগ। এর আগের দিন সোহেলের মেয়ে জান্নাতুল ইলমি সূচনা তার ফেসবুকে ওয়ান-ইলেভেনের ষড়যন্ত্রকারীদের বিষয়ে সতর্কতামূলক পোস্ট দেন।

গতকাল বুধবার বিএনপি দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ও সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স জানান, পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, দলের যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের খোঁজে তার বাসার গেটে দুই দফা পুলিশ গিয়েছিল। সোহেলের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছিলাম; কিন্তু ফোন বন্ধ থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, নতুন কমিটি ঘোষণার পর সোহেলের মেয়ে সূচনা তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন, এতদিন শুনেছি গাধার পিঠে মেধা ঘোরে। আজ হঠাৎ দেখছি ঘটনার উল্টোটাও হতে পারে, পৃথিবীটা বড়ই বিচিত্র জায়গা।

মন্তব্য করুন