দলমত নির্বিশেষে সমাজের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষকে নিয়ে জলবায়ু সংকট নিরসন, ন্যায়বিচার দাবি ও জনগণকে সচেতন করতে গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ড হাতে সমবেত হয়েছিলেন শতাধিক তরুণ। তাদের প্ল্যাকার্ডগুলোতে প্রকাশ পায় পৃথিবীকে জলবায়ু সংকট থেকে বাঁচিয়ে তোলার আকুতি।

এসব প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল 'আমাদের পৃথিবী একটাই', 'স্টপ! লিসেন টু মাই আর্থ' (থামুন, আমার ধরণির কথা শুনুন), 'বার্ন বর্ডারস নট কোল'(সীমান্ত জ্বালিয়ে দিন, কয়লা নয়), 'ট্রিট এভরি ক্রাইসিস এজ ক্রাইসিস' (প্রতিটি সংকটকে সংকট হিসেবে বিবেচনা করুন), 'লাভ ট্রিস প্লান্ট ট্রিস' (গাছকে ভালোবাসুন, গাছ লাগান)-সহ জলবায়ুবিষয়ক জনসচেতনতামূলক স্লোগান।

একশনএইড বাংলাদেশ তরুণদের নিয়ে তৃতীয়বারের মতো এই 'গ্লোবাল ক্লাইমেট স্ট্রাইক' নামের এ কর্মসূচির আয়োজন করে। একই সময়ে বাংলাদেশের ১৯টি জেলায় জলবায়ু সংকট নিরসন, ন্যায়বিচার দাবি ও জনগণকে সচেতন করতে সংগঠনটির ৯টি লোকাল রাইটস প্রোগ্রাম এবং 'ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস' ও 'বিন্দু' নামের দুটি যুব প্ল্যাটফর্মের তরুণরা এই আয়োজনে অংশ নেয়।

এ সময় জলবায়ু বিজ্ঞানীদের উদ্বেগের কথা উল্লেখ করে তরুণরা বলেন, তাপমাত্রার অর্ধ ডিগ্রি বৃদ্ধি পৃথিবীতে খরা, বন্যা, দাবদাহ, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধিসহ নানারকম সংকটের সৃষ্টি করবে। এর ফলে তলিয়ে যেতে পারে ভূপৃষ্ঠের অনেক অংশ, যা ব্যাহত করবে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। বাড়বে দারিদ্র্য, বিশেষ করে এর বড় প্রভাব পড়বে পৃথিবীর দক্ষিণাংশের মানুষের ওপর। ধনী কিংবা গরিব কেউই এর ধাক্কা থেকে বের হতে পারবে না। তবে মহিলা, শিশু ও দরিদ্র শ্রেণির মানুষের ওপর এর যে প্রভাব পড়বে- তা থেকে উত্তরণ হবে চ্যালেঞ্জিং।

আয়োজকরা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষ বিশেষত কৃষক, নারী ও শিশু বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এটি মানুষের স্বাস্থ্য, জীবিকা ও খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা বাড়িয়ে তুলছে। বৈশ্বিক তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমানো এবং জলবায়ুর ন্যায়বিচার নিশ্চিতের আহ্বান জানান তারা। একশনএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্‌ কবির বলেন, জলবায়ু সংকট মোকাবিলায় ও ন্যায়বিচারের ক্ষেত্রে তরুণদের অংশগ্রহণ জরুরি। বিশ্বব্যাপী তরুণরা তাদের সমস্যা ও চিন্তার কথা বিশ্বনেতাদের কাছে তুলে ধরতে চায় মূলত কপ-২৬ পল্গ্যাটফর্মের মাধ্যমে। তবে এ বছর করোনার টিকার প্রশ্নে কপ-২৬ সম্মেলন অংশগ্রহণমূলক হচ্ছে না বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন। জলবায়ু নিয়ে বাংলাদেশের তরুণদের চিন্তাভাবনা আসন্ন কপ-২৬ সম্মেলনে তুলে ধরতে ও বিশ্বনেতাদের কাছে পৌঁছে দিতে একশনএইডের রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড ক্লাইমেট জাস্টিস এবং ইয়াং পিপল টিম যৌথভাবে এ ক্লাইমেট স্ট্রাইকের আয়োজন করে।

মন্তব্য করুন