সদ্য ঘোষিত সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল দাবিতে মাঠে নেমেছেন বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা। তারা ত্যাগী নেতাকর্মীদের নিয়ে নতুন করে কমিটি গঠনের দাবি তুলেছেন। মঙ্গলবার রাজপথে বিক্ষোভের পর গতকাল বুধবার তারা কমিটি বাতিল দাবিতে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন। দাবি পূরণ না করলে আজ থেকে লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট ও বিক্ষোভ করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

গতকাল বিকেলে জেলা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে টাকার বিনিময়ে কমিটি ঘোষণা করার অভিযোগ করেন। বিদ্রোহী ছাত্রলীগ নেতাদের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ।

'ছাত্রলীগের সাবেক-বর্তমান নেতৃবৃন্দের' ব্যানারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সামাদ জানান, এক কোটি ২০ লাখ টাকার বিনিময়ে জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ দেওয়া হয়েছে। আলোচিত এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার আসামিদের গডফাদার, প্রতারণা মামলার আসামি, অছাত্র ও ফ্রিডম পার্টির নেতার নাতিকে অন্তর্ভুক্ত করে ঘোষিত কমিটি তারা কোনোভাবে মেনে নিতে পারেন না।

শাহরিয়ার সামাদ বলেন, কমিটি ঘোষণার আগে অভিভাবক সংগঠন সিলেট আওয়ামী লীগের কোনো পরামর্শ নেওয়া হয়নি। টাকার বিনিময়ে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। এক প্রশ্নে উত্তরে তিনি বলেন, আমাদের কোনো বলয় নেই। আমরা ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন চাই। মহানগর কমিটির সভাপতি সৌরভকে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক দাবি করে তিনি বলেন, সৌরভ ফ্রিডম পার্টির নেতা কাওসার আহমদের নাতি। জেলা ছাত্রলীগে নতুন দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজের শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তোফায়েল আহমদ সানি, কামরান হোসেন খান, শাক্কুর আহমদ জনি, নাইম চৌধুরী, আশরাফুল ইসলাম বাপ্পি, দীপঙ্কর টিপু, সৌরভ জায়গীরদার, আশফাক আহমদ মাসুক, মুহিবুর রহমান, মাজেদ তালুকদার, ইমরান আহমদ, আবিদ আল আজাদ মুন্না, দীপরাজ দিপিয়ান, ইমন ইবনে সম্রাজ, হাফিজ আহমদ, ওলিউর রহমান, শাহেদ আহমদ প্রমুখ।

মঙ্গলবার সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে নাজমুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ এবং মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি কিশওয়ার জাহান সৌরভ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মো. নাঈম আহমেদের নাম ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কমিটি ঘোষণার পরই সিলেটে ছাত্রলীগের একাংশ বিক্ষোভ ও টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে। জেলা ছাত্রলীগের নতুন সাধারণ সম্পাদকের আম্বরখানা বড়বাজারের বাসায় হামলাও করা হয়। অন্যদিকে, কমিটির পক্ষেও বিভিন্ন স্থানে আনন্দ মিছিল করা হয়। গতকাল সিলেটে কমিটি নিয়ে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের বিভিন্ন বলয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ একাধিক বৈঠক হয়েছে। বিশেষ করে ছাত্রলীগের বিভিন্ন গ্রুপ ঘন ঘন বৈঠক করছে। পূজার পর কমিটি বাতিলের দাবিতে বিশাল শোডাউনেরও প্রস্তুতি নিচ্ছেন বিদ্রোহীরা।

জেলা ছাত্রলীগে নতুন সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ তার শিক্ষাগত যোগ্যতা ও বিদ্রোহ বিষয়ে বলেন, ২০১১ সালে এসএসসি ও ২০১৩ সালে এইচএসসি পাস করে বর্তমানে সিলেটের লিডিং ইউনিভার্সিটিতে অধ্যয়নরত। প্রতিপক্ষ মিথ্যাচার করছে। দীর্ঘদিন পরে কমিটি এসেছে বলে কিছু প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

মন্তব্য করুন