দেশের বর্তমান সহিংসতা ও দুর্নীতি রোধ এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় জাতীয় সরকারের বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও মানুষের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে একটি কার্যকর রাষ্ট্র গঠনের জন্য এ ধরনের সরকার এখন জরুরি।

গত বুধবার রংপুরের পীরগঞ্জের মাঝিপাড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকী, ভাসানী অনুসারী পরিষদ মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু, মুক্তিযোদ্ধা নঈম জাহাঙ্গীর, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, উনসত্তরে গণঅভ্যুত্থানের শহীদ আসাদের ছোট ভাই ডা. নুরুজ্জামান, নারী পক্ষের নেত্রী শিরিন হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, এখানে যে অবস্থা দেখছি, এটি সরকারের ব্যর্থতার প্রমাণ। না হলে কুমিল্লার ঘটনার পর আরেকটি ঘটনাও ঘটার কথা ছিল না। আমি শুধু সরকারকে বলছি না। সরকারি দল, বিরোধী দল- আপনারা সবাই যদি কুমিল্লার ঘটনার পর সেদিন সেখানে যেতেন, তবে আজকে এই ঘটনাগুলো ঘটত না, সন্ত্রাসীরা সাহস পেত না।

রংপুরের পীরগঞ্জে ক্ষতিগ্রস্ত জেলেপল্লি পরিদর্শন শেষে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সাঁওতালদের সঙ্গে দেখা করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। সেখানে তিনি বলেন, আদিবাসীদের ছেলেমেয়েরা এসএসসি পাস করলে তাদের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি, খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা, বাসস্থানসহ সার্বিক সহযোগিতা করা হবে। আপনারা কেউ হতাশ হবেন না। আগেও আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকব।

মন্তব্য করুন