নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) আসন্ন নির্বাচনে অংশ নিতে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বিএনপির দুই নেতাসহ মোট তিনজন। গতকাল রোববার দুপুর থেকে বিকেলের মধ্যে জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন তারা।

বিএনপি দলীয়ভাবে এ নির্বাচনে অংশ নেবে কিনা- এ প্রশ্নের সুরাহা না হওয়ায় বিএনপির দুই নেতা আপাতত স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তারা হলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সহসভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসন খান এবং একই কমিটির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা অন্য প্রার্থী হলেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস।

রাশেদ ফেরদৌস তাঁতী লীগ জেলা কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট হাসান ফেরদৌস জুয়েলের ছোট ভাই। জুয়েল আওয়ামী লীগের প্যানেল থেকে দু'বার জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। গতকাল বিকেলে মেয়র পদে তিনজনের মনোনয়নপত্র সংগ্রহের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মতিয়ুর রহমান।

এদিকে দলের মনোনয়ন নিশ্চিত হলেও গতকাল পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেননি আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নাসিকের বর্তমান মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।

রোববার দুপুরে জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয় থেকে মেয়র পদে সর্বপ্রথম মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নির্বাচনে মানুষ ভোট দিতে পারবে কিনা, তা নিয়ে ভোটারদের মধ্যে শঙ্কা আছে। যদি মানুষ রায় দিতে পারে, তবে নারায়ণগঞ্জবাসী তাদের রায় আমার পক্ষে দেবে।

এরপর মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে এটিএম কামাল বলেন, বিএনপি নির্বাচনে না গেলে আমি স্বতন্ত্র নির্বাচন করব। দেশে নির্বাচন ব্যবস্থা শেষ করে দিয়েছে এই সরকার। তবুও নির্বাচনকে টেস্ট কেস হিসেবে নিচ্ছি। যদি মানুষ তাদের রায় দিতে পারেন, তবে পরিবর্তনের পক্ষেই রায় দেবে।

বিএনপির এই দুই নেতাই বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কেউ নির্বাচনে অংশ নিলে বিএনপির হাইকমান্ডের কোনো আপত্তি নেই- দলের পক্ষ থেকে এ সবুজ সংকেত পেয়েই তারা নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তবে শেষ পর্যন্ত দলের সিদ্ধান্তকে তারা সম্মান জানাবেন।। তারা দু'জনই সিটি নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছেন।

গত ৩০ নভেম্বর নাসিক নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। তফসিল অনুযায়ী, আগামী ১৫ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ।

ভোট নেওয়া হবে আগামী ১৬ জানুয়ারি।

মন্তব্য করুন