খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে দেশে ফেরানোর উদ্যোগ না নিলে সরকার পালানোর পথ খুঁজে পাবে না বলে হুঁশিয়ার করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, স্পষ্ট করে বলতে চাই, কালবিলম্ব না করে আপনাদের বাঁচার স্বার্থে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠান। তাকে সুস্থ করে দেশে নিয়ে আসুন। তা না হলে আপনাদের অবশ্যই জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের উদ্যোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। এতে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক দলের কয়েকশ নেতাকর্মী।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, এ সরকার দুর্বল। তাদের সঙ্গে জনগণ নেই। সেজন্য আগামী দিনে রাজপথে নামার জন্য সবাই প্রস্তুতি নিন। শিক্ষার্থীদের লাল কার্ড প্রদর্শন বিষয়ে তিনি বলেন, এই সরকারকে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা লাল কার্ড দেখিয়ে দিয়েছে। এই সরকার কোনো কথা রাখে না। এর আগে যখন ছাত্ররা আন্দোলন করেছিল তখন সরকার বলেছিল, সড়ককে সঠিকভাবে পরিচালনা করবে। সড়ক তো সঠিকভাবে পরিচালনা করতে পারছে না। এটা সরকারের ব্যর্থতা। মির্জা ফখরুল বলেন, ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তাকে সম্মান করি। কিন্তু তিনি সারাক্ষণ খালি বিএনপি, বিএনপি, আর বিএনপি দুঃস্বপ্ন দেখেন।

নির্বাচনী ব্যবস্থা নিয়ে তিনি বলেন, সরকার নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধবংস করে ফেলেছে। এই নির্বাচন ব্যবস্থা পাল্টাতে হবে। নির্বাচন কমিশনকে একেবারে ফেলে দিতে হবে। শুধু নির্বাচন কমিশনকেই সরালে হবে না, এই সরকারকে সরে যেতে হবে। নির্বাচনকালীন একটা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করে নির্বাচন আয়োজন করে মানুষের ভোটে নির্বাচিত সরকার গঠন করতে হবে।

শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেইনের সভাপতিত্বে ও প্রচার-প্রকাশনা সম্পাদক মঞ্জুরুল ইসলাম মঞ্জুর সঞ্চালনায় সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আব্দুস সালাম, বিএনপি নেতা হুমায়ুন কবির খান, ফিরোজ-উজ-জামান, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, শ্রমিক দলের সালাহউদ্দিন সরকার, আবুল খায়ের খাজা প্রমুখ বক্তব্য দেন।

মন্তব্য করুন