রাজধানী ঢাকায় জলাবদ্ধতার কারণে প্রতিবছরই নগরবাসী ভোগান্তিতে পড়েন। একটু বৃষ্টি হলেই ঢাকা শহরের বিভিন্ন সড়কে দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। ৫ জুলাই সমকালে প্রকাশিত প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে, 'উচ্চ ক্ষমতার পাইপলাইনেও ডুবল জিগাতলা!' এর আগের দিন মাত্র ৩৯ মিলিমিটারের বৃষ্টিতে জিগাতলার পাশাপাশি আরও অনেক এলাকা ডুবে যায়। অথচ রাজধানীর জলাবদ্ধতা কমাতে বিগত এক দশকে খরচ করা হয়েছে প্রায় হাজার কোটি টাকা। কিন্তু তার কোনো সুফল কি নগরবাসী পেয়েছে? সামান্য বৃষ্টিতে ঢাকার অধিকাংশ এলাকা সমুদ্রে পরিণত হয়। আমরা সিটি মেয়র ও ওয়াসার কাছ থেকে অনেক প্রতিশ্রুতি পেয়েছি। তারা প্রতিবার বলেন, রাজধানীতে আর জলাবদ্ধতা থাকবে না। বাস্তবে তা হয় না। একটু বৃষ্টি হলেই পুরান ঢাকার অনেক এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। বস্তুত ৪ জুলাইয়ের বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছিল রাজধানীর ২০-২৫ এলাকায়। হাঁটুসমান পানি জমেছিল অনেক বাসবাড়ি ও অফিসের নিচতলায়। বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পরও দীর্ঘ সময় ধরে জলাবদ্ধতা ছিল অনেক এলাকায়। এর অন্যতম কারণ হলো, পানি দ্রুত নিস্কাশনের জন্য তৈরি নালা-নর্দমাগুলো সঠিক সময় পরিস্কার হয়নি। অথচ নর্দমা পরিস্কার করার নামে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে। ঢাকা ওয়াসা এত টাকা কোথায় খরচ করে? সামান্য বৃষ্টিতে কেন জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়? বাস্তবতা হলো- সারা বছর নর্দমা পরিস্কার করা হয় না, বর্ষা এলেই ঢাকা সিটি কিংবা ঢাকা ওয়াসা নড়েচড়ে বসে। নর্দমার ময়লা পরিস্কার করে রাখা হয় রাস্তার ওপরে কিংবা পাশে। এতে বৃষ্টি এলে আবার তা নর্দমায় পড়ে যায়। এটা দুঃখজনক যে, জলের জন্য অর্থ খরচ করলেও সেই অর্থ আবার জলেই যায়! প্রতিবছর বর্ষা শুরুর আগেই নর্দমা পরিস্কার করা উচিত। না হলে নগরবাসীর দুর্ভোগ লাঘব হবে না।

ঢাকা

মন্তব্য করুন