সম্প্রতি র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা ও র‌্যাব-১০-এর একটি বিশেষ দল রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকা থেকে নাগিব হাসান অর্ণব ও তাইফুর রশিদ জাহিদের কাছ থেকে নতুন মাদক 'ম্যাজিক মাশরুম' উদ্ধার করেছে। গত ২৬ জুন সমকালে 'এলএসডির পর নতুন আতঙ্ক : ম্যাজিক মাশরুম ও এমডিএমএ' শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এরপর এই চক্র গ্রেপ্তার করতে মাঠে নামে র‌্যাব। ম্যাজিক মাশরুম সেবনে শারীরিক ক্ষতি ছাড়াও দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে মানসিক রোগ সাইকোসিস ছাড়াও অবিরাম হ্যালোসিনেশনের কারণ হতে পারে। এই মাদক সেবনকারীরা জীবজন্তুর সঙ্গেও কথা বলা শুরু করে। কখনও কখনও অক্সিজেনের জন্য গাছ জড়িয়ে ধরার মতো কাণ্ডও করে; এমনকি ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে নিজের জীবনহানি ঘটাতে পারে, যা সত্যি ভয়ংকর। লক্ষ্য করলে দেখা যায়, যাদের কাছ থেকে পেয়েছেন তারা উভয়েই তরুণ। তারুণ্যের ঐতিহ্য প্রতিবাদের, সংগ্রামের, যুদ্ধজয়ের। অথচ আজ তারা নিঃস্ব হচ্ছে মাদকাসক্তের নিদারুণ মৃত্যুফাঁদে।

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ক্রমাগত বাড়ছে মাদকাসক্ত তরুণের সংখ্যা। এর মূল কারণ সবখানেই সহজলভ্য হয়ে উঠছে মাদকদ্রব্য। তরুণ প্রজন্মই পারে একটি জাতি গঠনে মুখ্য অবদান রাখতে, অন্যদিকে মাদক একটি জাতিকে ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য মোক্ষম অস্ত্র। তাই জাতিকে ধ্বংসের হাত থেকে বাঁচাতে হলে মাদক নির্মূল করা অত্যন্ত জরুরি। তরুণদের হাতে যারা মাদক তুলে দেয়, তাদের মুখোশ উন্মোচন করে উপযুক্ত শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। মাদকদ্রব্য পাচার বন্ধে সীমান্ত, চিহ্নিত এলাকা এবং অনলাইনে নজরদারি বাড়াতে হবে। ইউনাইটেড স্টেটস ওয়োর্ডের এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, পিতামাতাই পারে সন্তানকে মাদকের গ্রাস থেকে রক্ষা করতে। এ জন্য পিতামাতাকে সন্তানদের পর্যাপ্ত সময় দিয়ে, বন্ধুসুলভ আচরণ ও খেয়াল রাখা জরুরি, যাতে সে কোনো অস্বাভাবিক জীবন-যাপন করছে কিনা কিংবা কেমন বন্ধুদের সঙ্গে সে মিশছে ইত্যাদি। সরকারের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। মাদক নিয়ন্ত্রণে সরকারি কর্মচারীদের নানা রকম দুর্নীতি রুখে দিতে সরকারকে আরও কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ ও তদারকি বাড়াতে হবে। সামাজিক সচেতনতা, শরীর চর্চা ও ধর্মীয় অনুশাসনই পারে যুব সমাজকে মাদক থেকে অনেকটা দূরে রাখতে। তাদের মধ্যে নৈতিক মূল্যবোধের জাগরণ ঘটাতে হবে। আসুন, সবাই মাদকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই। মাদকমুক্ত হোক সমাজ। সুস্থ পরিবেশে বেড়ে উঠুক প্রতিটি তরুণ। মাদকদ্রব্য নয়, তরুণ প্রজন্ম থেকে আবিস্কার হোক সৃষ্টিশীল মহান কাজ।

শিক্ষার্থী, সরকারি তিতুমীর কলেজ, ঢাকা

মন্তব্য করুন