মানুষ জীবনকে নিরাপদ করার জন্য আপ্রাণ প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে। একটির সমাধান করতে না করতে নতুন সমস্যা সামনে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটছে অনেকের, অথচ একটু সচেতন হলেই বিভিন্ন দুর্ঘটনা রোধ করা যায়। এ রকম আরেক দুর্ঘটনার নাম সিলিন্ডার বিস্টেম্ফারণ। বর্তমানে শহরে কিংবা গ্রামে, রেস্তোরাঁ কিংবা বসতবাড়িতে প্রায় সর্বত্রই রান্নার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার। গ্যাস সিলিন্ডার রান্নার কাজকে যেমন সহজ করেছে, তেমনি জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবেও আবির্ভূত হয়েছে। বছর বছর ঘটে চলা সিলিন্ডার বিস্ম্ফোরণের মর্মদন্তু ঘটনাগুলো অন্তত তাই বলে।

আমাদের দেশে গ্যাস সিলিন্ডারের ব্যবহার বাড়ছে। এর সঙ্গে মৃত্যুঝুঁকি বৃদ্ধি করছে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্টেম্ফারণ। বোতলজাত গ্যাস সিলিন্ডার বিস্টেম্ফারণ যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে, তেমনি বাড়ছে সিলিন্ডার গ্যাস বিস্টেম্ফারণ। ফলে বাসাবাড়িতে ব্যবহার করা গ্যাস সিলিন্ডার অনিরাপদ হয়ে উঠছে, সেই সঙ্গে রাস্তায় গাড়িতে এবং কারখানায়ও ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। মাঝেমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্টেম্ফারণে প্রাণহানি ঘটছে। যারা বেঁচে থাকছে, তাদেরও কঠিন মৃত্যু যন্ত্রণা নিয়ে কাটাতে হচ্ছে। গত দুই দশকে সিএনজিচালিত যানবাহন মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। নিরাপত্তার আন্তর্জাতিক মান নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রতিটি সিএনজি গ্যাস সিলিন্ডার পাঁচ বছর পরপর রিটেস্টের বাধ্যবাধকতা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। এর ফলে নিশ্চিন্তে চলা যাত্রীদের জীবনের ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের জীবনে যোগ হয়েছে নতুন সংশয়।

খুচরা পর্যায়ের ব্যবসায়ী ও ব্যবহারকারীরা গ্যাস সিলিন্ডারের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের নিয়মকানুন সম্পর্কে অবগত নন। বাসাবাড়িতে যারা ব্যবহার করছেন, তারা অনেকেই সতর্ক নন। অনেক ক্ষেত্রে গ্যাস কোনোভাবে বের হলেও বুঝতে পারছেন না। আর এতেই বিপত্তি ঘটছে। এলপি গ্যাসের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এর সিলিন্ডার বিষয়ে আরও সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। কারণ, সিলিন্ডারটি ব্যবহারের উপযুক্ত কিনা সেটা দেখতে হবে। একটি সিলিন্ডারের নির্দিষ্ট মেয়াদ রয়েছে। খুচরা পর্যায়ে যথাতথা ব্যবহারের ফলে সেই সিলিন্ডার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কর্তৃপক্ষের আরও পর্যবেক্ষণ করা প্রয়োজন। ত্রুটিপূর্ণ, ক্ষতিগ্রস্ত বা মেয়াদ উত্তীর্ণ সিলিন্ডার যেন কোনোভাবেই বাজারে না থাকে, তা দেখভাল করতে হবে। নিজেদের সতর্কতাও প্রয়োজন। সিলিন্ডার ব্যবহার হয়, এমন ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ থাকলে ব্যবহারের কমপক্ষে দশ মিনিট আগে খুলে রাখতে হবে। সতর্ক থাকতে হবে বাড়িতে সিলিন্ডার ব্যবহারেও। সামান্য একটু অবহেলা বড় ক্ষতির কারণ হতে পারে।

শিক্ষক, পাবনা।
sopnil.roy@gmail.com

মন্তব্য করুন