নূরের ওপর হামলা

মামলার আরেক আসামি গ্রেফতারের পর নিখোঁজ!

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি ২০১৪      

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, উত্তরাঞ্চল

আওয়ামী লীগের সাংসদ ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের গাড়িবহরে হামলা মামলার আরেক আসামি শিবির নেতা মহিদুল ইসলাম এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। পরিবারের অভিযোগ, পুলিশ মহিদুলকে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর থেকেই তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। এর আগে লাশ উদ্ধার হওয়া মামলার আরেক আসামি আতিকুরের সঙ্গে পুলিশ মহিদুলকে ধরে নিয়ে যায় বলে দাবি তার পরিবারের। পুলিশ তাকে আটক কিংবা ধরে নিয়ে যাওয়ার কথা অস্বীকার করেছে। নিখোঁজ মহিদুল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিবিরের নেতা। তার বাড়ি নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের সুখধন গ্রামে।
এদিকে ছাত্রদল নেতা আতিকুর রহমান নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলা
দায়ের করেছে সৈয়দপুর থানা পুলিশ। এসআই শহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে এ মামলা করেছেন বলে জানান থানার ওসি (তদন্ত) ফিরোজ কবির। তবে হত্যাকারী কে, তা উল্লেখ করা হয়নি। সোমবার ভোরে কে বা কারা তাকে হত্যা করে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের সৈয়দপুর বাইপাস সড়কের পাশে নাড়িয়াখাম্বা এলাকায় ফেলে রেখে যায়। এর আগে গত শনিবার একই মামলার প্রধান আসামি গোলাম রব্বানীর লাশ নীলফামারী-ডোমার সড়কের পাশে পাওয়া যায়।
মহিদুলের খোঁজ চান বাবা :নূরের ওপর হামলা মামলার আসামি শিবির নেতা মহিদুলের পরিবারের অভিযোগ, মহিদুলকে (২৫) সাত দিন আগে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। তবে পুলিশ এখন তা স্বীকার করছে না।
মহিদুল ইসলামের বাবা আনোয়ার হোসেন জানান, ১৪ জানুয়ারি টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার দেবিডুবা গ্রামের বাবুল খানের বাড়ি থেকে লাশ উদ্ধার হওয়া আতিকের সঙ্গে তার ছেলেকেও পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। তিনি বলেন, এরপর টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন থানায় খবর নিয়ে এখনও তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। তার ধারণা, আতিকের মতো তার ছেলেকেও হত্যা করা হয়েছে কিংবা হবে। তিনি তার ছেলেকে হত্যা নয়, অন্যায় করলে বিচারের মাধ্যমে শাস্তি দাবি করেন।
এ ব্যাপারে নূরের ওপর হামলা মামলার মনিটরিং কর্মকর্তা নীলফামারী সদর থানার ওসি (তদন্ত) বাবুল আখতার জানান, মহিদুল পুলিশের হাতে আটক হয়েছে বলে কোনো খবর তাদের কাছে নেই।