বইয়ের তরী

প্রকাশ: ২৪ জুন ২০১৪      

সমকাল ডেস্ক

লন্ডনে বিনোদন সাংবাদিকতা করতে করতে যখন ক্লান্ত হয়ে উঠেছেন, তখনই ভিন্নধর্মী একটি বইয়ের দোকান দেওয়ার চিন্তা সারা হেনশোর মাথায় আসে। তার স্বপ্নের সেই ভাসমান লাইব্রেরি এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে পুরো যুক্তরাজ্য। সারা হেনশোর এই বইয়ের তরী যাত্রা শুরু করে ২০০৯ সালে। ব্রিটেনের জলপথে পাঁচ বছর ভেসে বেড়ানোর পর এখন বইয়ের বার্জ নিয়ে অন্যান্য দেশে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন
সারা। সব ঠিক থাকলে আগামী বছরই 'দি বুক বার্জ' ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে ফ্রান্সে যাবে।
পরিকল্পনা চূড়ান্ত করার পর সারার সামনে প্রথম সমস্যা হলো টাকা। ঋণ নিতে ব্যাংকে গেলে তারা হেসেই উড়িয়ে দিল। শেষ পর্যন্ত সহায় হলেন সারার বাবা-মা। তাদের দেওয়া ধারের টাকায় সারা কিনলেন সরু কিন্তু দীর্ঘ একটি নৌযান। ব্রিটেনে যাকে বলা হয় ক্যানাল বার্জ। তবে সারা এর নাম দিয়েছেন 'দি বুক বার্জ'। সেই নৌকায় বই সাজিয়ে তিনি ভেসে পড়লেন বার্টন শহরের কাছাকাছি একটি বন্দরে।
শুরুর দিকে অনেকেই আগ্রহ নিয়ে এলেন। ব্যবসাও ভালো চলল। তবে দুই বছরের মাথায় পরিস্থিতির অবনতি শুরু হলো। টিকে থাকার তাড়না থেকেই সারা তার বইয়ের তরীর নোঙর তুলে নিলেন। নৌকা নিয়েই তিনি গেলেন বিভিন্ন শহরের পাঠকের কাছে। এতে প্রচার হলো, বিক্রিও বাড়ল। খরচ কমাতে সারা নিজের ফ্ল্যাটটি ছেড়ে দিলেন। নৌকার মধ্যেই শুরু করলেন বসবাস। বিক্রি বাড়াতে আরও নতুন নতুন আইডিয়া তিনি চালু করেছেন। টাকা না থাকলেও সমস্যা নেই। এক বেলার খাবার, পুরনো বই বা এক দফা চুল কেটে দিয়েও সারার দোকান থেকে বই কেনা যায়।
সারা ও তার বইয়ের তরী নিয়ে বিস্তারিত জানা যাবে তার লেখা বই 'দি বুকশপ দ্যাট ফ্লোটেড অ্যাওয়ে' থেকে। সূত্র :ডয়েচে ভ্যালে।