গত কয়েক মাসের সীমান্ত হত্যার বিবরণ তুলে ধরে সীমান্ত হত্যা বন্ধে ভারতের কাছে কার্যকর পদক্ষেপ চেয়েছে বাংলাদেশ। গত বৃহস্পতিবার দিলি্লতে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ-ভারত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে এ বিবরণ তুলে ধরে বাংলাদেশ। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে সীমান্তে হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনতে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ভারত।
সে সঙ্গে যেসব এলাকায় অপদখলীয় জমি সমস্যা দু'দেশের যৌথ জরিপের মাধ্যমে সমাধান হয়েছে, সেসব এলাকায় কৃষকদের নির্বিঘ্নে চাষাবাদ করতে যেন সমস্যা না হয়, সেজন্যও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আশ্বাস দিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।
সূত্র আরও জানায়, বৈঠকে দীর্ঘমেয়াদি ভারতীয় ভিসার জন্য বাংলাদেশের প্রস্তাব আপাতত বিবেচনা করা সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে গতকাল শুক্রবার ঢাকার ভারতীয় দূতাবাসের পাঠানো বৈঠকের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, অবৈধ অনুপ্রেবেশ এবং সীমান্ত অপরাধ কমিয়ে আনতে বৈঠকে উভয় পক্ষ সমন্বিত সীমান্ত ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনার কার্যকর বাস্তবায়নের ব্যাপারে একমত হয়েছে।
বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গত কয়েক মাসের সীমান্ত হত্যার পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়। যেসব ঘটনায় বাংলাদেশি নাগরিক ভারতীয় বিএসএফের হাতে নিহত হয়েছে তার ঘটনাস্থল, সময় ও কীভাবে ঘটনা সংঘটিত হয়েছে তার বিবরণ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে এর আগে বিভিন্ন পর্যায়ের বৈঠকে সীমান্তে হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনতে দুই দেশের ঐকমত্যের বিষয়টিও তুলে ধরা হয়। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জোর দিয়ে বলা হয়, ভারতীয় বিএসএফের হাতে একের পর এক বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হওয়ার বিষয়টি অগ্রহণযোগ্য। দুই বন্ধু রাষ্ট্রের সীমান্তে এ ধরনের হত্যাকাণ্ড সমীচীন নয়। একই সঙ্গে বাংলাদেশ-ত্রিপুরা সেক্টরে যৌথ জরিপের পর আর কোনো অপদখলীয় জমি না থাকলেও সেখানে কৃষকদের ধান কাটতে বিএসএফের বাধা দেওয়ার বিষয়টিও তুলে ধরা হয়।
জবাবে ভারতীয় পক্ষ থেকে জানানো হয়, সীমান্তে চোরাচালান ও অবৈধ অনুপ্রবেশের মতো অপরাধ বন্ধ হলে অনাকাঙ্ক্ষিত জীবনহানির ঘটনাও শূন্যে নেমে আসবে। পরে উভয় দেশ সমন্বিত যৌথ সীমান্ত ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা কার্যকরভাবে বাস্তবায়নে একমত হয়। একই সঙ্গে যৌথ জরিপের মাধ্যমে অপদখলীয় ভূমি সমস্যার সমাধান হওয়া এলাকায় চাষাবাদ নিয়ে আর যেন সমস্যার সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেয় ভারতীয় পক্ষ।
সূত্র আরও জানায়, বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য দীর্ঘমেয়াদি ভিসা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে একটি প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে ভারতীয় পক্ষ জানায়, আপাতত এ প্রস্তাব বিবেচনা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে ভিসা প্রক্রিয়া আরও সহজ করার আশ্বাস দেওয়া হয় ভারতের পক্ষ থেকে।

মন্তব্য করুন