ছুটিতে স্বাস্থ্যসেবায় গাফিলতি সহ্য করা হবে না- মোহাম্মদ নাসিম

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০১৮      

সমকাল প্রতিবেদক

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, 'ঈদের ছুটিতে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকের সংখ্যা স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে কিছু কম থাকবে। কিন্তু কোনো রোগীই চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হবেন না। কোনো অভিযোগ পেলে সংশ্নিষ্টদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রোগীর সেবা নিয়ে কোনো গাফিলতি সহ্য করা হবে না।' গত মঙ্গলবার তিনি সমকালকে এ কথা বলেন।

উল্লেখ্য, ঈদুল ফিতরের ছুটিতে হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে সেবা  স্বাভাবিক এবং অব্যাহত রাখতে এরই মধ্যে নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ঈদের সপ্তাহখানেক আগে থেকেই সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে বিরাজ করে ছুটির আমেজ। অনেক চিকিৎসক এ সময় দায়িত্বে থাকার পরও অনুপস্থিত থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তখন নার্স ও ওয়ার্ডবয়রাই হয়ে উঠেন রোগীদের ভরসা। মুমূর্ষু রোগীরা এ সময় মহাসংকটে পড়েন। ঈদের ছুটিতে হাসপাতালে সেবায় বিঘ্ন ঘটতে পারে- এ আশঙ্কায় অনেক রোগী হাসপাতাল ছেড়ে যান।

তবে কয়েক বছর ধরে ঈদের সময় হাসপাতালের এমন চিত্র বদলেছে। এখন ঈদের সময়ও হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকরা সেবা দিয়ে থাকেন। তুলনামূলকভাবে রোগীই কম পাওয়া যায়। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের কড়া হুঁশিয়ারি ও কঠোর ব্যবস্থাপনায় ঈদের সময়টায় হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকও থাকছেন, রোগীরাও চিকিৎসা পাচ্ছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনায় দেশের সব সরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে সীমিত আকারে হাসপাতালের আউটডোর ও সব হাসপাতালে জরুরি বিভাগ স্বাভাবিকভাবে চালু রাখতে বলা হয়েছে। চিকিৎসকদের রুটিন করে পর্যায়ক্রমে ছুটি দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সমকালকে বলেন, 'ঈদের ছুটিতে সরকারি হাসপাতালগুলোতে স্বাভাবিক চিকিৎসাসেবা চালু থাকবে। অপারেশন থিয়েটার চালু থাকবে। বহির্বিভাগও সীমিত আকারে খোলা থাকবে। প্রতিটি বিভাগের জন্য পৃথক রোস্টার তৈরি করা হয়েছে। রাজধানীতে বিশেষ টিম চিকিৎসাসেবা তদারকি করবে।'

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, 'ঈদের ছুটির কারণে রোগীদের উদ্বেগ বা উৎকণ্ঠার কিছু নেই। সবকিছুই স্বাভাবিকভাবে সচল থাকবে। ঈদের ছুটিতে সরকারি হাসপাতালে রোগীর সেবা নির্বিঘ্ন রাখার জন্য এরই মধ্যে চিকিৎসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পুরো বিষয়টি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সমন্বয় করছে। এসব ব্যবস্থা বিশেষ টিমের মাধ্যমে মনিটর করা হবে।'