জাপানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রধানমন্ত্রী

রোহিঙ্গাদের ফেরাতে মিয়ানমারকে বোঝান

প্রকাশ: ০৮ আগস্ট ২০১৮      

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

রোহিঙ্গাদের ফেরাতে মিয়ানমারকে বোঝান

মঙ্গলবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো - পিআইডি

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে বোঝানোর জন্য জাপানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল মঙ্গলবার এক দিনের সফরে ঢাকায় আসা জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কোনো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাতে এলে শেখ হাসিনা এ আহ্বান জানান। বিকেলে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন বলে জানায় বাসস।

পরে সন্ধ্যায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করেন তারো। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, জাপান রোহিঙ্গাদের নিরাপদে ও স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন চায়।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাতের পর প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। ইহসানুল করিম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশ থেকে নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে মিয়ানমারকে রাজি করানোর জন্য জাপানসহ আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতি তার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেছেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'রোহিঙ্গাদের অবশ্যই

তাদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হবে। এ জন্য মিয়ানমারকে তাদের নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য বোঝাতে হবে।'

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদনের উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, নেপিদো রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে সম্মত হয়েছিল। তবে তারা এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। তিনি বলেন, 'আমরা এসব রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসনের বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রেখেছি।'

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, তিনি তার সাম্প্রতিক মিয়ানমার সফরে দেশটির রাষ্ট্রপতি উইস মিন্ট এবং স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির সঙ্গে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেছেন।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, 'বাংলাদেশ থেকে ফিরে যাওয়ার পর যাতে ভালো পরিবেশে তারা বসবাস করতে পারে, সেজন্য রাখাইন স্টেটে ঘরবাড়ি এবং স্কুল নির্মাণ কর্মসূচি দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য আমি তাদের বলেছি।' তারো কোনো বলেন, বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলো যাতে তাদের প্রতিনিধি দল পাঠিয়ে পরিদর্শন করানো হয় এবং রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার বিষয়ে তারা যেন বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে, সে জন্যও তিনি মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন।

মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক :সন্ধ্যায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করেন জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কানো। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলন তারো বলেন, মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকে বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে সহযোগিতার সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়া এবং রোহিঙ্গা সংকট বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন চায় জাপান। রাখাইনে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসান ও বসবাসের জন্য জাপান প্রয়োজনীয় সহযোগিতাও দেবে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে যত রকম সহযোগিতা প্রয়োজন তা দিতে প্রস্তুত জাপান। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ ও জাপান দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বন্ধু। উন্নয়ন অংশীদার হিসেবে বাংলাদেশের জন্য জাপানের ওডিএ বা সরকারি পর্যায়ে উন্নয়ন সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদ আলী বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহযোগিতা করতে জাপান প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশে জাপানের উন্নয়ন সহযোগিতা আরও বৃদ্ধির কথাও জানিয়েছে জাপান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বৈঠকে জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানানো হয় যে হলি আর্টিসানে হামলার ঘটনায় গত ২৩ জুলাই চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। ওই হামলার পর যেসব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সে বিষয়েও জাপানকে বিস্তারিত অবহিত করা হয়েছে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী লড়াইয়ে জাপান বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলেও প্রত্যাশার কথা জানান মাহমুদ আলী। জাপানের নাগরিকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে সতর্কবার্তা পুনঃপর্যালোচনার জন্য জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করার কথাও জানান তিনি।

জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গতকাল দুপুর সোয়া ১২টায় হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছলে তাকে স্বাগত জানান পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক। মঙ্গলবার রাতেই তারা কানো ঢাকা ত্যাগ করেন।