ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের দাবি হাস্যকর ওবায়দুল কাদের

প্রকাশ: ১২ জানুয়ারি ২০১৯      

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি

ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের দাবি হাস্যকর ওবায়দুল কাদের

শুক্রবার গাজীপুরের চন্দ্রায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের- সমকাল

নতুন নির্বাচন আয়োজনে জাতীয় সংলাপের যে দাবি জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, তাকে হাস্যকর বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, 'সারা বিশ্ব একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

দুনিয়ার সব গণতান্ত্রিক দেশই বাংলাদেশের এই নির্বাচনকে স্বীকৃতি দিয়েছে, প্রশংসা করেছে। এ অবস্থায় এ নির্বাচন নিয়ে জাতীয় সংলাপের দাবি হাস্যকর।'

গতকাল শুক্রবার দুপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের চন্দ্রা এলাকায় ফ্লাইওভার ও চারলেন সড়কের নির্মাণ পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে গিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বাংলাদেশের জনগণ কী বলল সেটা হলো বড় কথা। বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট কী বলল তাতে কিছু আসে যায় না। '৭০-এর পর নৌকার পক্ষে এমন গণজোয়ার কেউ আর দেখেনি। জনগণ বিপুলভাবে শেখ হাসিনার উন্নয়ন, গণতন্ত্র এবং সততার পক্ষে রায় দিয়েছেন। কাজেই এ নির্বাচন নিয়ে কোনো প্রশ্ন পৃথিবীর কোথাও নেই এবং বাংলাদেশেও নেই। জনগণ তাদের ভোট না দিয়ে প্রত্যাখ্যান করেছে। তারা এখন নানা দাবি জানিয়ে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করছে।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি জোটের নির্বাচিত এমপিরা সংসদে আসবেন না বলে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা অবৈধ। তারা আগে সংসদে আসুক। অধিবেশনে যোগ দিক।

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, নতুন সরকারের অগ্রাধিকার হচ্ছে সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর ৭ দিনের মধ্যে সড়ক ও মহাসড়ক অবৈধ দখলমুক্ত করার জন্য অভিযান পরিচালনা করবে। এ ছাড়া অবৈধ পার্কিং উচ্ছেদ করতে পুলিশকে বলা হয়েছে। অবৈধ দখল ও অবৈধ পার্কিং নিয়ন্ত্রণ করা গেলে সড়কে শৃঙ্খলা অনেকটা ফিরে আসবে।

মন্ত্রী বলেন, মানুষের জীবন আগে, জীবিকা পরে। আমি যদি বাঁচতেই না পারি তাহলে জীবিকার সন্ধান কী করে হবে! গরিব মানুষ জীবিকার কথা আগে ভাবে। তারা জীবনের কথা ভাবে না। ছোট যানগুলো যখন দুর্ঘটনায় পড়ে, তখন চালক ও আরোহী সকলেই মারা যান। বড় গাড়ির সঙ্গে ছোট গাড়ির একটু টোকা লাগলেই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। বর্তমানে দুর্ঘটনার হার কমে গেলেও মৃত্যুর হার বেড়েছে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, চন্দ্রা ও কোনাবাড়ী দুটি ফ্লাইওভারের কাজ দু'মাসের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এগুলো উদ্বোধন করবেন। এ ছাড়া গাজীপুর-এলেঙ্গা চারলেনের কাজ জুন মাসের মধ্যেই শেষ হবে। কাঁচপুরে চারলেনের কাজ প্রায় শেষ। দ্বিতীয় মেঘনা সেতুর কাজ জুনের মধ্যে শেষ হবে। বাস র‌্যাপিড ট্রানজিটের কাজও এগিয়ে চলছে।

সেতুমন্ত্রীর সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিভাগের সড়ক সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক সবুজ উদ্দিন খান, গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আমিনুল ইসলাম, গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাসুদ, গাজীপুর সওজের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী সাইফুদ্দিন প্রমুখ।