ড. মোমেনের সাক্ষাৎ

শেখ হাসিনার সঙ্গে কাজ করবে ভারত :মোদি

প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

শেখ হাসিনার সঙ্গে কাজ করবে ভারত :মোদি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন - সংগৃহীত

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে নয়াদিল্লি সহযোগিতা করবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গতকাল বৃহস্পতিবার ভারত সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে এ আশ্বাস পাওয়া যায়।

ড. মোমেন সাক্ষাৎকালে রোহিঙ্গা সংকটের বর্তমান চিত্র তুলে ধরে তা সমাধানে ভারতের অধিকতর সহায়তা চান। এ সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী এ সংকট সমাধানে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন। বৈঠকের পর দিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এদিকে, ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশের নতুন সরকারের সঙ্গে কাজ করে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছেন মোদি।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশের অব্যাহত অগ্রগতি এবং ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক নতুন মাত্রায় উন্নীত করার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। বিপন্ন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়াসহ মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন মোদি। ড. মোমেন মোদিকে জানান, এ সংকট দীর্ঘায়িত হলে তা বাংলাদেশের জন্য যেমন অসহনীয় বোঝা হয়ে যাবে, তেমনি এ অঞ্চলেও অস্থিরতার সৃষ্টি হতে পারে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাক্ষাতের শুরুতেই মোদি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ায় ড. মোমেনকে অভিনন্দন জানান। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরে ভারতকে বেছে নেওয়ায় তাকে ধন্যবাদ জানান মোদি। এ সময় দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অগ্রগতি সম্পর্কে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন মোমেন। মোদি বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক গত কয়েক বছরে আরও উন্নত হয়েছে। ড. মোমেন গতকাল ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন।

আজ জেসিসির বৈঠক :আজ শুক্রবার দিল্লিতে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ পরামর্শক কমিশনের (জেসিসি) বৈঠক হবে। এ বৈঠকের আগে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন ড. মোমেন।

সংশ্নিষ্ট কূটনৈতিক সূত্র জানায়, জেসিসি বৈঠকে একাধিক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে বাংলাদেশের দুর্নীতি দমন কমিশন এবং ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (সিবিআই) সহযোগিতা, স্বাস্থ্য খাতে সহযোগিতা এবং মোংলা বন্দরের কাছে বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠাবিষয়ক সমঝোতা স্মারক।

সূত্র জানায়, দুদক-সিবিআই সমঝোতা স্মারকের উদ্দেশ্য হচ্ছে দুর্নীতি তদন্তে দু'দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানো। এর আলোকে ভারতের সিবিআইর পক্ষ থেকে বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা করা হবে। সমঝোতা স্মারকের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ১৮ কর্মকর্তার প্রশিক্ষণ নেওয়ার কথা রয়েছে।

স্বাস্থ্য খাতে সহযোগিতা বিষয়ে সূত্র জানায়, ভারতে পাঁচ বছর আগে আয়ুষ মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করে আধুনিক চিকিৎসার পাশাপাশি ভারতীয় বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতি প্রসার ঘটানো হচ্ছে। ভারতের আয়ুষ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এ চিকিৎসা পদ্ধতি-সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে।

মোংলা বন্দরের কাছে একটি বিশেষায়িত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে। ভারতের হিরান্দনি গোষ্ঠীকে এই অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।

কূটনৈতিক সূত্র জানায়, ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বিশেষভাবে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলার প্রসঙ্গ আসতে পারে। এ ছাড়া আঞ্চলিক নিরাপত্তা-সংক্রান্ত বিষয়ও আলোচনায় গুরুত্ব পাবে।

সূত্র আরও জানায়, সফরের তৃতীয় দিন শুক্রবার ড. মোমেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে তার বাসভবনে সাক্ষাৎ করবেন। এ ছাড়া তিনি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের দেওয়া ভোজসভায় অংশ নেবেন। শনিবার ঢাকায় ফিরবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।