একুশে বইমেলা

আজ থেকে জমবে কেনাবেচা

প্রকাশ: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

আজ শুক্রবার, কাল শনিবার, পরশু সরস্বতী পূজা। এর দু'দিন পর পহেলা ফাল্কগ্দুন আর ভালোবাসা দিবসের ধারাবাহিক আগমন। এর পর আবারও শুক্র ও শনিবার। সব মিলিয়ে জমাট ও উৎসবমুখর ৯ দিন জমিয়ে বিক্রি হবে- এ প্রত্যাশায় বুক বাঁধছেন প্রকাশকরা।

এরই মধ্যে পেরিয়েছে এবারের গ্রন্থমেলার প্রথম সপ্তাহ। বাংলা একাডেমির তথ্য অনুযায়ী, এরই মধ্যে মেলায় এসেছে ৮৩২টি নতুন বই।

নিয়মানুযায়ী গতকাল বৃহস্পতিবারও মেলার দুয়ার সবার জন্য উন্মুক্ত হয় বিকেল ৩টায়। গতকাল পড়ূয়া ক্রেতাদের জন্য চমক ছিল জাতীয় টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের উপস্থিতি। 'বর্ষাদুপুর' থেকে প্রকাশিত চৌধুরী জাফরউলল্গাহ শরাফাতের 'নাম্বার ওয়ান সাকিব আল হাসানের' মোড়ক উন্মোচন করতে তিনি মেলায় আসেন। মঞ্চে তার হাতে বাংলাদেশ ক্রীড়া ধারাভাষ্যকার সমিতির বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের পুরস্কারও তুলে দেওয়া হয়। এ সময় সাকিব বলেন, 'মেলায় আসা হয় না নানা ব্যস্ততায়। আজকে এসে খুবই ভালো লাগছে। আরও ভালো লাগছে আমাকে নিয়ে একটি বই প্রকাশ হয়েছে বলে।'

সাকিব আল হাসান বেরিয়ে যাওয়ার ঘণ্টাখানেক পর জনস্রোত বয়ে যায় তাম্রলিপির প্যাভিলিয়নের সামনে। সেখানে দাঁড়িয়ে প্রিয় ভক্তদের অটোগ্রাফ দেন জনপ্রিয় শিশুসাহিত্যিক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। এবারের মেলায় গতকালই তার প্রথম আসা। সমকালকে তিনি বলেন, 'যত সমস্যাই হোক, অটোগ্রাফ দিয়ে যাব। শিশুদের কাছে থাকা সবসময় আনন্দের।'

ভিড় বাড়ছে, কেনাকাটা বাড়ছে আর মেলা জমে ওঠার সুস্পষ্ট লক্ষণ দেখতে পাচ্ছেন প্রকাশকরা। বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ও সময় প্রকাশনের কর্ণধার ফরিদ আহমেদ সমকালকে বললেন, মেলার প্রথম শুক্রবার উদ্বোধনের কারণে তেমন জমেনি। সুতরাং কালকের (আজ) শুক্রবারই এবারের মেলার প্রথম শুক্রবার। সে সঙ্গে শনিবার, সরস্বতী পূজা, পহেলা ফাল্কগ্দুন এবং ভালোবাসা দিবসও রয়েছে। সব মিলিয়ে আজ থেকে এবারের মেলার মূল বিক্রি শুরু হতে যাচ্ছে।

সাত দিনে ৮৩২ বই : বাংলা একাডেমির জনসংযোগ উপবিভাগের তথ্যানুযায়ী- মেলার প্রথম সপ্তাহে নতুন ৮৩২টি বই এসেছে। সবচেয়ে বেশি এসেছে কবিতার বই- ২১৪টি। উপন্যাসের বই প্রকাশ পেয়েছে ১৫০টি, গল্পের ১২৮টি। এ ছাড়া এসেছে ৪৭টি প্রবন্ধ, ৩০টি মুক্তিযুদ্ধ, ১৫টি গবেষণা, ২৪টি ছড়া, ১৭টি বিজ্ঞান, ১৮টি ইতিহাস, ১৬টি সায়েন্স ফিকশন, তিনটি অনুবাদ, ২৩টি করে শিশুসাহিত্য, জীবনী ও ভ্রমণ, আটটি করে নাটক ও রম্য/ধাঁধাঁ, চারটি করে রচনাবলি ও ধর্মীয়, ছয়টি করে রাজনীতি ও স্বাস্থ্য এবং ৬৫টি অন্যান্য বিষয়ের নতুন বই।

বাংলা একাডেমির সংবাদ সম্মেলন :গতকাল একাডেমির শহীদ মুনীর চৌধুরী সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বাংলা একাডেমি। এতে মেলা নিয়ে কথা বলেন একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুলল্গাহ সিরাজী ও মেলার সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ।

হাবীবুলল্গাহ সিরাজী বলেন, মেলার জন্য একটি স্থায়ী মাঠের প্রয়োজন। এটি হলে মেলাকে আরও সুন্দরভাবে আয়োজন করা সম্ভব।

জালাল আহমেদ বলেন, এবার প্রকাশিত বইয়ের মান ও বিক্রি দুটিই ভালো। সজ্জার বিষয়ে একাডেমি খুবই সচেতন থাকায় প্রত্যাশার অনেকটাই কাছাকাছি যাওয়া সম্ভব হয়েছে। আগামীবার এবারের ভুল-ত্রুটি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হবে বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে, ছয় ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত হিসেবে বাংলা একাডেমি ২৫ লাখ ৩১ হাজার ১৭ টাকার বই বিক্রি করেছে। গতবার এ সময় বিক্রির পরিমাণ ছিল ১৮ লাখ ১৪ হাজার ৮৬১ টাকা। সেই হিসাবে সাত লাখ টাকার বই বেশি বিক্রি হয়েছে।

'লেখক বলছি' : গতকাল 'লেখক বলছি' মঞ্চে নিজেদের সাহিত্যকর্ম বিষয়ে আলোচনায় অংশ নেন প্রাবন্ধিক ও গবেষক সুরাইয়া বেগম (মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রাণদানকারী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী), কথাসাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক (তৃষ্ণিতা), কবি মাহী ফ্লোরা (মরিওঁম), কবি রাজু আলাউদ্দিন (শাহাবুদ্দিন আহমেদের সাক্ষাৎকার) এবং কথাসাহিত্যিক কাজী রাফি (আটলান্টিকের পড়ন্ত বিকেল)।

নতুন বই :একাডেমির তথ্যকেন্দ্র থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, গতকাল মেলায় ১৬১টি নতুন বই এসেছে। এর মধ্যে রয়েছে- গল্প ২১, উপন্যাস ২৮, প্রবন্ধ ২, কবিতা ৫৩, গবেষণা ৩, ছড়া ১, শিশুসাহিত্য ৭, জীবনী ৪, মুক্তিযুদ্ধ ৩, বিজ্ঞান ৪, ভ্রমণ ৮, ইতিহাস ৫, রাজনীতি ১, স্বাস্থ্য ১, রম্য/ধাঁধা ২, ধর্মীয় ৩, সায়েন্স ফিকশন ৫ এবং অন্যান্য বিষয়ের ১০টি নতুন বই। এর মধ্যে রয়েছে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর 'গণতন্ত্রের অভিমুখে' (কথাপ্রকাশ), ওবায়দুল কাদেরের 'বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধ ও অন্যান্য' (অন্বেষা), রফিকুন নবীর 'স্মৃতির পথরেখায়' (বেঙ্গল), মুনতাসীর মামুনের 'জয় বাংলা যেভাবে ছিনতাই হয়ে যায়' (আলোঘর), আনিসুল হকের 'তোমার জন্য, ভালোবাসা' (কাকলী), সুব্রত কুমার দাসের 'কানাডীয় সাহিত্য :বিচ্ছিন্ন ভাবনা' (মূর্ধন্য), মোকারম হোসেনের 'রংধনুর ফুল' (কথাপ্রকাশ) ও পিয়াস মজিদের 'জীবনানন্দ :আমার অসুখ ও আরোগ্য' (ঐতিহ্য)।

মেলামঞ্চের আয়োজন :গতকাল মেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় 'ভাষাবিজ্ঞানী মুহম্মদ আবদুল হাই : জন্মশতবর্ষ শ্রদ্ধাঞ্জলি' শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. সৌমিত্র শেখর। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক মনিরুজ্জামান, শহীদ ইকবাল এবং তারিক মনজুর। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ করেন কবি রুবী রহমান এবং শিহাব সরকার। আবৃত্তি পরিবেশন করেন মাহফুজ মাসুম এবং কাজী বুশরা আহমেদ তিথি। সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, কান্তা নন্দী, সন্দীপন দাস, সাজেদ ফাতেমী, শান্তা সরকার এবং মো. নূরুল ইসলাম।

আজকের আয়োজন : আজ মেলা চলবে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। এর মধ্যে সকাল ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত মেলায় চলবে শিশুপ্রহর। অমর একুশে উদ্‌যাপনের অংশ হিসেবে সকাল সাড়ে ৮টায় গ্রন্থমেলা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। বিকেলে মেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে 'চিত্রশিল্পী পরিতোষ সেন : জন্মশতবর্ষ শ্রদ্ধাঞ্জলি' শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন আবুল মনসুর। আলোচনায় অংশ নেবেন মতলুব আলী, সৈয়দ আবুল মকসুদ এবং আমীর-উল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন রফিকুন নবী। সন্ধ্যায় রয়েছে কবিকণ্ঠে কবিতা পাঠ, কবিতা-আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।