উদ্বোধনী দিন ছিল গত শুক্রবার। মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টা খোলা ছিল সেদিনের মেলা। ওই দিন সেভাবে জমে না উঠলেও পরের দিন থেকে মেলায় পাঠক আসতে শুরু করেন। তবে কয়েকদিন প্রত্যাশিত বিক্রিবাট্টা হয়নি। ফলে প্রকাশকদের নজর ছিল দ্বিতীয় শুক্রবারের দিকে। খুশির খবর- তারা হতাশ হননি। দলবেঁধে মেলায় প্রবেশ করেছেন পাঠকরা। তাদের পদচারণায় গমগম ছিল মেলা প্রাঙ্গণ। বিক্রিও হয়েছে ভালো। আর এতেই প্রকাশকদের মুখে ফুটেছে হাসি।

গতকাল সকাল ১১টায় খুলে দেওয়া হয় অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রবেশদ্বার। অভিভাবকদের নিয়ে মেলায় আসতে শুরু করে খুদে পাঠকরা। এদিন সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ছিল 'শিশু প্রহর'। এ দুই ঘণ্টা শিশুরা আনন্দের সঙ্গে বিচরণ করেছে তাদের জন্য নির্মিত শিশু চত্বরে। আর এখানকার বটতলা মানেই সিসিমপুর। খুদে পাঠকদের আনন্দ দিতে বটতলায় নেচেগেয়ে মাতিয়ে রাখে সিসিমপুরের চার চরিত্র- হালুম, টুকটুকি, ইকরি ও সিকু।

শিশু চত্বরে দাঁড়িয়ে কথা হচ্ছিল স্কলাসটিকা স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী বিম্বিত বিভাবরী অনুসৃতার সঙ্গে। শুধু পাঠক নয়, সে মেলায় এসেছে লেখক হিসেবেও। ১১ বছর বয়সী এ শিশুর লেখা ইংরেজি বই 'নক নক' প্রকাশ করেছে চর্চা গ্রন্থ প্রকাশ।

আরেক খুদে লেখক অলীন বাসারের দুটি বই প্রকাশ হয়েছে। এর মধ্যে 'বিড়াল পণ্ডিত' প্রকাশ করেছে ঘাসফড়িং এবং 'গোরস্তানে বিয়ে' প্রকাশ করেছে সাম্প্রতিক প্রকাশনী। গতকাল সিসিমপুর মঞ্চে বই দুটির মোড়ক উন্মোচন করেন কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক।

শিশু প্রহরে ভিন্ন মাত্রা নিয়ে আসেন বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার। ঘুরে ঘুরে শিশুদের সঙ্গে ছবি তোলেন তিনি। এ সময় তিনি বলেন, ২০১৩ সাল থেকে ইউএসএআইডির সহযোগিতায় কার্যক্রম পরিচালনা করছে সিসিমপুর। এটি অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি অনুষ্ঠান,

যা নিউইয়র্কের কিছু কার্টুন চরিত্রের আদলে সৃষ্টি। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৩০ লাখ শিশুর কাছে এটি পৌঁছে গেছে। শুধু টেলিভিশন অনুষ্ঠান নয়, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষায় এটি ছড়িয়ে গেছে। এর মাধ্যমে শিশুরা ভাষা, নৈতিকতা ও মনন সম্পর্কে জানতে পারে। তিনি বলেন, আমরা আমাদের সময়ের কার্টুন চরিত্রের সঙ্গে বড় হয়েছি। আর এখনকার শিশুরা বড় হচ্ছে হালুম, ইকরি, টুকটুকির সঙ্গে।

শিশু প্রহর ও জুমার নামাজের পর বিকেল থেকে মেলায় নামে জনস্রোত। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বিশাল প্রাঙ্গণে ছিল ভিড়। ঘুরেফিরে বই দেখা, সেলফি তোলা ও আড্ডার পাশাপাশি প্রিয় লেখকের বই ঘরে নিয়ে ফিরেছেন পাঠকরা। তাদের আগমন আর বিক্রিতে মুখে হাসি ফুটেছে প্রকাশকদের।

অন্বেষা প্রকাশনের স্বত্বাধিকারী শাহাদাৎ হোসেন বলেন, এবারের মেলা প্রথম থেকেই জমে উঠেছে। তবে প্রত্যাশামাফিক বিক্রি আজ (গতকাল) থেকে শুরু হলো। একই কথা বললেন ইত্যাদি গ্রন্থ প্রকাশের অন্যতম স্বত্বাধিকারী আদিত্য অন্তর। তিনি বলেন, মেলার প্রথম শুক্রবার থেকেই বই বিক্রির ধুম পড়ে। তবে এবার প্রথম শুক্রবার উদ্বোধনী দিন হওয়ায় তাতে ব্যাঘাত হয়। সব ছাপিয়ে দ্বিতীয় শুক্রবারেই মেলা পুরোদমে জমে উঠেছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে এবার দারুণ হবে গ্রন্থমেলা।

গতকাল ছুটির বিকেলে পাঠকদের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করতে এসেছিলেন জনপ্রিয় লেখকরাও। মেলায় পাঠকদের অটোগ্রাফ দিতে দেখা যায় কবি আবু হাসান শাহরিয়ার, কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক, আহমাদ মোস্তফা কামাল, সুমন্ত আসলাম, প্রাবন্ধিক সৈয়দ আবুল মকসুদসহ অনেককেই।

পাঠকের উপচেপড়া ভিড়ে জমে উঠেছিল 'লেখক বলছি' মঞ্চটি। গতকাল এ মঞ্চে নিজেদের সাম্প্রতিক সাহিত্যকর্ম নিয়ে আলোচনা করেন নাসরীন জাহান, মিনার মনসুর, রফিকুর রশিদ, আহমাদ মোস্তফা কামাল ও দ্রাবিড় সৈকত।

আজ শনিবার মেলা চলবে সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত। সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত থাকবে শিশু প্রহর।

মুস্তাফিজ শফির দুই বই :শুক্রবার ছুটির বিকেলে মেলায় আসে কবি ও সাংবাদিক মুস্তাফিজ শফির দুটি কবিতার বই। কথাপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত হয়েছে 'ব্যক্তিগত রোদ এবং অন্যান্য' কাব্যগ্রন্থ। তিনটি কবিতার ধারাবাহিক নিয়ে সাজানো হয়েছে বইটি। ধারাবাহিকগুলো হলো- 'ব্যক্তিগত রোদ', 'ইজেলের পাশে' ও 'এইসব বিষণ্ণতা'। চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ ইউনুসের প্রচ্ছদে ৬৪ পৃষ্ঠার বইটির মূল্য ১৫০ টাকা। চৈতন্য থেকে এসেছে তার 'কবির বিষণ্ণ বান্ধবীরা' কাব্যগ্রন্থের পরিবর্ধিত ও পরিমার্জিত সংস্করণ। এর আগে ২০১৫ সালে বইটির প্রথম সংস্করণ মেলায় এসেছিল। প্রথম সংস্করণের ৩৯টি কবিতার সঙ্গে নতুন করে সংযুক্ত ১৩টি মিলিয়ে মোট ৫২টি কবিতা নিয়ে বইটি আবার প্রকাশ হলো। চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ ইউনুসের চিত্রকর্ম অবলম্বনে শাশ্বত রায়হানের প্রচ্ছদে বইটির মূল্য ১৬০ টাকা।

নতুন বই :একাডেমির জনসংযোগ উপবিভাগ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, গতকাল মেলায় এসেছে ২৬৩টি নতুন বই। এর মধ্যে রয়েছে- যতীন সরকারের 'সংস্কৃতি ভাবনা' (ভাষা প্রকাশ), ইমদাদুল হক মিলনের 'কলাপাতা ও লাল জবা ফুল' (কথা প্রকাশ), সৈয়দ শামসুল হকের 'হূৎকলমের টানে' (মাওলা ব্রাদার্স), সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর 'কিশোর প্রবন্ধ' (শিশুসাহিত্য কেন্দ্র), আবু কায়সারের রায়হানের রাজহাঁস (উৎস), মোশতাক আহমেদের 'প্যারাসাইকোলজি স্বপ্নস্বর্গ' (অনিন্দ প্রকাশ), আহমেদ রিয়াজের 'পাঁচ রসিকের গল্প' (আলোঘর), আমীন আল রশীদের 'বাংলাদেশের গণমাধ্যম জনআস্থার দোলাচল' (ঐতিহ্য), অমিত আশরাফের 'ছাটমানুষের জাগ' (প্রিন্ট পোয়েট্রি), মুহাম্মদ জাফর ইকবালের 'এক ডজন একজনে' (সময়), আবুল হাসানের 'প্রেমের কবিতা সমগ্র' (কবি প্রকাশনী), সৈয়দ আবুল মকসুদের 'নির্বাচিত সহজিয়া কড়চা' (পাঠক সমাবেশ), মোহিত কামালের 'লুইপার কালসাপ' (বিদ্যাপ্রকাশ), আনিসুজ্জামানের 'স্মরণ ও বরণ' (চন্দ্রাবতী একাডেমী), ইন্দ্রজিৎ সরকারের 'এইসব কাছে আসা' (দেশ পাবলিকেশন্স), হাসান জাকীরের 'দু হাতে ছড়ানো শূন্যতা' (আবিস্কার), খান চমন-ই-এলাহির 'মেয়েটি বাংলাদেশ প্রজন্মের' (শুদ্ধপ্রকাশ)।

মেলামঞ্চের আয়োজন :গতকাল মেলার মূল মঞ্চে 'চিত্রশিল্পী পরিতোষ সেন :জন্মশতবর্ষ শ্রদ্ধাঞ্জলি' শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান হয়েছে। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আবুল মনসুর। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন মতলুব আলী ও সৈয়দ আবুল মকসুদ। সভাপতিত্ব করেন রফিকুন নবী।

সন্ধ্যায় কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ করেন কবি অঞ্জনা সাহা ও রনজু রাইম। আবৃত্তি পরিবেশন করেন মীর বরকত। সঞ্জয় রায়ের পরিচালনায় সাংস্কৃতিক সংগঠন গীতিসত্র ও ফারহানা চৌধুরীর পরিচালনায় নৃত্য সংগঠন বাংলাদেশ একাডেমি অব ফাইন আর্টস (বাফা) শিল্পীরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন।

আজকের আয়োজন :মেলার মূল মঞ্চে আজ বিকেলে অনুষ্ঠিত হবে 'লেখক অনুবাদক আবদুল হক : জন্মশতবর্ষ শ্রদ্ধাঞ্জলি' শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন সৈয়দ আজিজুল হক। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন অজয় দাশগুপ্ত, সোহরাব হাসান ও আহমাদ মাযহার। সভাপতিত্ব করবেন সুব্রত বড়ূয়া। সন্ধ্যায় রয়েছে কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ, আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।



মন্তব্য করুন