কিশোরগঞ্জ-১ (কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুর) আসনের পুনর্নির্বাচনে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের মেয়ে ও প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ছোট বোন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। মনোনয়নপত্র জমাদানকারী তিন প্রার্থীর মধ্যে দুই প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ায় একক প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপিকে নির্বাচিত ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। রোববার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময়ের আগে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে গণতন্ত্রী পার্টির প্রার্থী অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র চন্দ্র ভৌমিক দোলন তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। এর আগে শনিবার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. মোস্তাইন বিল্লাহ তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন।

কিশোরগঞ্জ-১ আসনের পুনর্নির্বাচনে গত ৩১ জানুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময় পর্যন্ত প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ছোট বোন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি, গণতন্ত্রী পার্টির প্রার্থী দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র চন্দ্র ভৌমিক দোলন এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী জাতীয় মৎস্যজীবী পার্টির সিনিয়র সহসভাপতি মো. মোস্তাইন বিল্লাহ এই তিন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। ৩ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র বাছাইকালে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ দোলন এবং মোস্তাইন বিল্লাহর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন। রিটার্নিং অফিসারের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে দোলন এবং মোস্তাইন বিল্লাহ আপিল করেন। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন তাদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে। পরে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় রোববার বিকেল ৫টার আগে এ দুই প্রার্থীই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। ফলে একক প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও জনপ্রশাসন মন্ত্রী প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম থাইল্যান্ডে চিকিৎসাধীন থেকেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে কিশোরগঞ্জ সদরের এই আসন থেকে টানা পঞ্চমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। কিন্তু শপথ নেওয়ার আগেই গত ৩ জানুয়ারি থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।



মন্তব্য করুন