খালিজ টাইমসকে প্রধানমন্ত্রী

টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে চাই

প্রকাশ: ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতা গ্রহণের পর তার লক্ষ্য হচ্ছে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা। তিনি বলেন, 'জনগণ আমার ওপর আস্থা রেখেছে। তারা আমাকে ভোট দিয়েছে। আমি তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। জনগণ উন্নয়নের সুফল পেয়েছে বলেই এটা সম্ভব হয়েছে। ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে উন্নত দেশ।' সংযুক্ত আরব আমিরাত সফরকালে আবুধাবিতে খালিজ টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। গতকাল বুধবার সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশিরা এখন চাইলে কাজের জন্য বিদেশে যেতে পারেন। আবার দেশেও কাজ নিতে পারেন। দেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতেও তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশে ফিরতে চাইলে তাদের জন্য কাজের অবারিত সুযোগ রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর ৩১ বছর ক্ষমতায় ছিল কর্তৃত্ববাদী সরকার। ২১ বছর পর তিনি ক্ষমতায় আসেন। এ সময় তিনি উন্নয়নে মন দেন। জনগণের সেবা করার সুযোগ পেয়েই তিনি খাদ্য নিরাপত্তা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, অবকাঠামো উন্নয়ন, বিদ্যুৎ, পানি, পয়ঃনিস্কাশনে নানা পদক্ষেপ নিয়েছেন। এর ফলে দারিদ্র্যের হার ২১ ভাগের নিচে নেমে এসেছে। আশা করা হচ্ছে এটা আরও কমবে।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে প্রথম সফরেই আমিরাতে যাওয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেখ হাসিনা বলেন, দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক রয়েছে। দেশটিতে রয়েছেন অনেক বাংলাদেশি কর্মী। দেশটির বিনিয়োগ পেতে তিনি আগ্রহী। তার সফর চমৎকার ও অত্যন্ত সফল হয়েছে। তিনি দেশটির শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এ সময় ভালো আলোচনা হয়েছে। তিনি আশা করেন, আমিরাতের বিনিয়োগ আসবে বাংলাদেশে। আমিরাতে বাংলাদেশি কর্মীদের সমস্যা সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এসব নিয়ে দেশটির শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে তার আলোচনা হয়েছে।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকার এরই মধ্যে মিয়ানমারের সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে এবং তারা তাদের ফিরিয়ে নিতে রাজি হয়েছে। দুঃখজনক হলো, তা হয়নি। চুক্তি বাস্তবায়নে ধীরগতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মিয়ানমার সরকার তাদের ফিরিয়ে নেওয়ার অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়েছে। রোহিঙ্গারা ফিরে যেতে আস্থা পাচ্ছে না। রোহিঙ্গাদের জন্য আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি করা মিয়ানমার সরকারের দায়িত্ব।

'লন্ডনে টাকা দিয়েছে দুবাই প্রবাসী':গালফ নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে আদৌ গুরুত্বের সঙ্গে নেয়নি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গত নির্বাচনে বিরোধী দলের মনোনয়ন পাওয়ার আশায় দুবাই প্রবাসী এক ব্যক্তি 'লন্ডনে টাকা দিয়ে' মনোনয়নপত্র জমা দিতে হাজির হয়েছিলেন আবুধাবিতে বাংলাদেশের দূতাবাসে। দূতাবাস তাকে বলল, তারা তো মনোনয়নপত্র নিতে পারে না। তাকে কাগজপত্র জমা দিতে হবে বাংলাদেশে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে।

দূতাবাসের পক্ষ থেকে তখন বিষয়টি ঢাকায় নির্বাচন কমিশনকে অবহিত করা হয় জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ওই ভদ্রলোক খুব হতাশ হয়ে পড়লেন। একপর্যায়ে তিনি বললেন, আমি লন্ডনে অমুককে অমুককে এত এত টাকা দিলাম। তারা আমাকে বলল আমি এখানেই (সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশ দূতাবাস) মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারব। এ ঘটনাকে বিরোধী দলের 'অদক্ষতার নমুনা' হিসেবে বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'নির্বাচনটা তারা এভাবেই করেছে।' তিনি বলেন, বিএনপি প্রায় ৯০০ প্রার্থীকে (৩০০ আসনের জন্য) মনোনয়ন দিয়েছে। প্রতি আসনে দু-তিনজন করে। প্রতি আসনে দু-তিনজনকে মনোনয়ন দিলে কীভাবে জেতা সম্ভব?

গত চার বছরে বাংলাদেশ থেকে জনশক্তি রফতানি দ্বিগুণ হয়েছে। তবে সে অনুযায়ী রেমিট্যান্স বাড়েনি। তিনি বলেন, উপসাগরীয় দেশগুলোর (অর্থনৈতিক) পরিস্থিতির প্রভাব বাংলাদেশের জনশক্তি রফতানির ওপর পড়েনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বিদেশে কর্মসংস্থান হয় চার লাখ ৫৩ হাজার ৩৯৮ বাংলাদেশির। তবে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিদেশে গেছেন আট লাখ ৬৭ হাজার ১২৮ বাংলাদেশি।

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জার্মানি এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে ছয় দিনের সরকারি সফর শেষে গতকাল বুধবার সকালে দেশে ফিরেছেন। বাসস জানায়, বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী এবং তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে সকাল ৬টা ২৫ মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।