সোনাইমুড়ী ও সুবর্ণচরে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৩

প্রকাশ: ১৩ এপ্রিল ২০১৯

নোয়াখালী প্রতিনিধি

সোনাইমুড়ী ও সুবর্ণচরে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৩

সোনাইমুড়ীতে গ্রেফতার নিজাম উদ্দিন ও আমিনুল ইসলাম- সমকাল

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে গৃহবধূ ও সুবর্ণচরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোনাইমুড়ীতে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার উপজেলার বারগাঁও গ্রামের আমিনুল ইসলাম মিন্টু ও উজির আলীর ছেলে নিজাম উদ্দিন বাচ্চুকে গতকাল শুক্রবার দুপুরে নোয়াখালীর ৬ নম্বর আমলি আদালতে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। অন্য ঘটনায় সুবর্ণচরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার কিশোরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সোনাইমুড়ী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এমদাদ হোসেন জানান, গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার আমিনুল ইসলাম মিন্টু ও নিজাম উদ্দিন বাচ্চু পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। তবে আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য আদালতের কাছে তাদের পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। তিনি জানান, এজাহারভুক্ত চার আসামির মধ্যে আরও দু'জনকে গ্রেফতারে পুলিশ মাঠে রয়েছে। তারা হলো- একই গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে আলা উদ্দিন ও হানিফের ছেলে নুরনবী তারেক।

এদিকে গণধর্ষণের পর ওই নারী মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। বৃহস্পতিবার রাতে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, দু'জন নারী পুলিশ সদস্য দরজার বইরে দাঁড়িয়ে তাকে পাহারা দিচ্ছেন।

ভাই-বোনের সঙ্গে পারিবারিক বিষয় নিয়ে মনোমালিন্যের জেরে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিমান করে বাবার বাড়ি থেকে পাশের গ্রামের নানার বাড়িতে যাচ্ছিলেন স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়া ওই নারী। পথে তাকে অপহরণ করে বারগাঁও গ্রামের একটি বাগানে নিয়ে রাতভর ধর্ষণ করে চার দুর্বৃত্ত। পরে মধ্যরাতে স্থানীয় সুপারিবাগানের পাশে একটি ডোবা থেকে পুলিশ আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে।

এদিকে সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বার ইউনিয়নের চর পানাউল্যা গ্রামে ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে চরজব্বার থানায় মামলা করেন। পুলিশ ওই রাতেই অভিযুক্ত কিশোরকে গ্রেফতার করে। গতকাল মেয়েটিকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। চরজব্বার থানার ওসি শাহেদ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।