পার্বতীপুর পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০১৯

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি

দিনাজপুরের পার্বতীপুর পৌরসভার মেয়র এ জেড এম মেনহাজুল হকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। পৌরসভায় চাকরি দেওয়ার কথা বলে প্রথমে তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ ওই নারীর (৩৫)। পরে নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে বেশ কয়েকবার ধর্ষণ করা হয় তাকে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে থানায় মামলা করেছেন তিনি। গতকাল বুধবার পার্বতীপুর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে পৌর মেয়রকে দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান তিনি। পুলিশ ওই নারীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য দিনাজপুর আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। অভিযোগকারী ওই নারী জানান, পৌরসভায় মাস্টাররোলে চাকরি দেওয়ার কথা বলে মেয়র মেনহাজুল হক তাকে গত ২৯ জুন সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে তার বাসায় ডেকে নেন। সরল বিশ্বাসে তার বাসায় গেলে তাকে পৌরসভার কেয়ার অফিসসংলগ্ন পুকুরপাড়ে নিয়ে যান। সেখানে অবস্থানরত এরশাদ ও রবি ওড়না দিয়ে তার মুখ বেঁধে ফেলে তিনজনই জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়র অন্যদের বলেন, তাকে মেরে পুকুরে ফেলে দিতে। নইলে পরে মামলা করতে পারে।

ওই নারী জানান, তাকে হত্যা করতে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ধারালো চাকু দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে আসামিরা। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে মুখের ওড়না সরে গেলে চিৎকার করেন তিনি। তার চিৎকার শুনে পথচারীরা এগিয়ে এলে মেয়র ও তার সাঙ্গোপাঙ্গরা পালিয়ে যায়। পরে লোকজন তাকে জখম অবস্থায় পার্বতীপুর উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি (তদন্ত) শেখ মোহাম্মদ জুবায়ের মক্কি জানান, ভিকটিমকে গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত পার্বতীপুর পৌর মেয়র মেনহাজুল হক জানান, তাকে ফাঁসানোর জন্য ওই নারী ধর্ষণের মামলা করেছেন।