আমাদের ছেলেরা ভালো খেলেছে

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০১৯

মোহাম্মদ সালাউদ্দিন

পারফরম্যান্সের দিকে তাকালে দেখবেন, খুবই ভালো ক্রিকেট খেলেছে বাংলাদেশ। তিনটি ম্যাচ জিতেছে- দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে। বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত না হলে শ্রীলংকার বিপক্ষেও জিততে পারত। কাল পাকিস্তানকে হারাতে পারলে পঞ্চম দল হিসেবে বিশ্বকাপ শেষ করার একটা সুযোগ থাকবে। আশা করি শেষটা জয় দিয়েই হবে। তবে সার্বিক পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করলে বাংলাদেশ প্রতিটি দলের সঙ্গেই ভালো ক্রিকেট খেলেছে। দলের রান আর ক্রিকেটারদের লড়াকু মানসিকতা দেখে কারও বলার উপায় নেই ভালো খেলেনি। কিন্তু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স আরও একটু ভালো হতে পারত। সাকিব ও মুশফিক ছাড়া ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স তেমন একটা চোখে পড়েনি। তামিম, সৌম্য, লিটন, মাহমুদুল্লাহ, মোসাদ্দেক আরও ভালো খেলতে পারত। ছন্দে থেকেও সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেনি তারা। এদিক থেকে একটু হতাশা আছে। কারণ তাদের প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন ম্যাচে রান করলে বড় কিছু হতে পারত।

এবার বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই ভালো টাচে ছিল। দলীয়ভাবেও শক্তিশালী জায়গায় দেখেছি বাংলাদেশকে। সেই জায়গা থেকে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স দলের জন্য অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছিল। নিউজিল্যান্ড ও ভারতের বিপক্ষে জয়ের সম্ভাবনা ছিল। এজন্য সাকিব ও মুশফিকের বাইরে অন্যদের ভালো খেলতে হতো। সেটা হয়নি। তামিম আর সৌম্য ওপেনিংয়ে একটা বড় ইনিংস খেলতে পারেনি। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচগুলোতে তিন-চারজন খেলোয়াড়কে ভালো খেলতে হয়। মঙ্গলবার ভারতের বিপক্ষে ওপেনিং জুটি ১০০ রান করতে পারলে মিডল অর্ডারে কেউ না কেউ দাঁড়িয়ে যেত। লোয়ার মিডল অর্ডারে তো সাব্বির আর সাইফউদ্দিন দারুণ খেলেছে। মোসাদ্দেক আর লিটনের কাছ থেকেও কিছু রান এলে আমাদের জেতার সম্ভাবনা বেশি থাকত। তবে ওইদিন বোলিংটা কিন্তু ভালো হয়েছে। বিশেষ করে মুস্তাফিজ ছন্দে ফিরেছে। কোহলি, পান্ডিয়া ও ধোনির মতো ব্যাটসম্যানকে সে আউট করেছে। মুস্তাফিজ আর একটু আগে জ্বলে উঠলে দল উপকৃত হতো।

ওভারঅল রানের দিকে তাকালে দেখা যাবে দু'জনের পারফরম্যান্সের ওপর ভর করে এত ভালো খেলেছে বাংলাদেশ। সেখানে চার-পাঁচজন ভালো খেললে কোনো প্রতিপক্ষই নিরাপদে যেতে পারত না। পুরো টুর্নামেন্টে পেস বোলিং ভালো হয়নি। তবে স্পিনাররা অনেক ভালো বল করেছে। উইকেট কম পেলেও মিরাজ অনেক ভালো করেছে। সাকিবের অসাধারণ পারফরম্যান্সের কারণেই সব সময় মনে হয়েছে আমরা ভালো লড়াই করেছি। সাকিব যেভাবে খেলেছে, ওর ৫০০ প্লাস রান আছে, ১১ উইকেট পেয়েছে। পাকিস্তানের বিপক্ষেও ভালো কিছু করলে সেরা খেলোয়াড় হওয়ার একটা সুযোগ থাকবে। ব্যক্তিগত এই পুরস্কারটা পেলেও বাংলাদেশের বড় অর্জন হবে।



টুর্নামেন্টে অন্য দলগুলোর বিপক্ষে যেভাবে খেলেছে তাতে বলা যায় পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশ ভালো দল। বিশেষ করে ব্যাটিংটা অনেক পরিণত। এদিক দিয়ে চিন্তা করলে পাকিস্তানের বিপক্ষে জেতা উচিত। পাকিস্তানের বোলিংটা ভালো। তবে উইকেট ফ্ল্যাট হওয়ায় স্পিনাররা ভালো বল করলে ম্যাচটা জিততে পারবে বাংলাদেশ। শুধু এই টুর্নামেন্টের পারফরম্যান্সই নয়, দু-তিন বছর ধরেই শ্রীলংকার চেয়ে ভালো খেলছে বাংলাদেশ। সেদিক থেকে বলব, পাকিস্তানকে হারিয়ে বিশ্বকাপে পঞ্চম হতে পারলে বড় অর্জন হবে। আশা করি, টাইগাররা লর্ডসে জিতে লর্ডের মতোই দেশে ফিরবে।

লেখক :জাতীয় দলের সাবেক সহকারী কোচ