নুসরাতকে যৌন নির্যাতনের মামলা ট্রাইব্যুনালে

সিরাজের অপকর্মের কথা জানালেন নৈশপ্রহরী

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফেনী ও সোনাগাজী প্রতিনিধি

সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন নির্যাতনের মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের আদেশ দেওয়া হয়েছে। ফেনীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসাইন গতকাল বৃহস্পতিবার শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। ট্রাইব্যুনালে মামলার পরবর্তী তারিখ ৯ জুলাই।

বাদীপক্ষের আইনজীবী এম শাহজাহান সাজু জানান, শুনানি শেষে মামলাটি ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়েছে। কারণ সোনাগাজী আমলি আদালতে মামলাটির কার্যক্রম চলা এখতিয়ারবহির্ভূত।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পিবিআই-ফেনী পরিদর্শক শাহ আলম জানান, ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজ নুসরাতকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্নীলতাহানি করে। পরে নুসরাতের মা শিরিন আক্তার সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করলে পুলিশ অধ্যক্ষকে আটক করে। পুলিশ সদর দপ্তর থেকে মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়। পিবিআই ৯৬ দিনের মাথায় গত বুধবার আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। মামলায় সিরাজকে একমাত্র আসামি করে তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ ধারায় অভিযোগ দাখিল করা হয়। ২৭১ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে চিকিৎসক, পুলিশসহ মোট ২৯ জন সাক্ষী রয়েছেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে ফেনী কারাগার থেকে সিরাজকে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। ম্যাজিস্ট্র্রেট মামলার বিষয়ে পিবিআই কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন ও অভিযোগপত্র বিষয়ে জানতে চান। তদন্ত কর্মকর্তা শাহ আলম শুনানিকালে অভিযোগপত্র বিষয়ে আদালতকে অবহিত করেন। পর্যালোচনা শেষে ম্যাজিস্ট্র্রেট মামলার অভিযোগপত্রসহ সব কাগজ ফেনীর ট্রাইব্যুনালে পাঠানোর নির্দেশ দেন। শুনানিকালে আসামিপক্ষে কোনো আইনজীবীকে দেখা যায়নি।

অপরদিকে একই দিন সকালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে নুসরাত হত্যার অপর মামলায় একজনের সাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে। আগামী রোববার পরবর্তী দিন ধার্য করে তিন সাক্ষীকে হাজির থাকার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এর আগে মামলার ১৬ আসামিকে ফেনী কারাগার থেকে বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে হাজির করা হয়। আদালত সোনাগাজী ইসলামীয়া মাদ্রাসার নৈশপ্রহরী মোস্তফার সাক্ষ্য গ্রহণ করেন ও আসামিপক্ষের আইনজীবীরা সাক্ষীর জবানবন্দির ওপর জেরা সম্পন্ন করেন।

আদালতের পিপি হাফেজ আহাম্মদ ও বাদীপক্ষের আইনজীবী শাহজাহান সাজু জানান, রোববার মামলার পরবর্তী তারিখে সাক্ষী লোকমান হোসেন, জসিম উদ্দিন ও হেলাল উদ্দিন ফরহাদকে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সিরাজের অপকর্মের ফিরিস্তি তুলে ধরলেন নৈশপ্রহরী :নুসরাত হত্যা মামলায় গতকাল আদালতে সাক্ষ্য দেন সোনাগাজী ইসলামীয়া মাদ্রাসার নৈশপ্রহরী মোস্তফা। এ সময় তিনি অধ্যক্ষ সিরাজের অপকর্মের ফিরিস্তি তুলে ধরেন। আদালতকে মোস্তফা জানান, মাদ্রাসায় তিনি ১৯৯৯ সালে নৈশপ্রহরী হিসেবে যোগদান করেন। নৈশপ্রহরী হলেও অধ্যক্ষের নির্দেশে তিনি দিনেও ডিউটি করেন। অধ্যক্ষ তাকে নির্দেশনা দেয়- বিনা অনুমতিতে কেউ যেন তার অফিসে প্রবেশ করতে না পারে। এভাবে অধ্যক্ষ তার অফিসকক্ষে বিভিন্ন সময় একাধিক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করেছে। এর মধ্যে কিছু ঘটনা আড়ালও হয়ে গেছে।