বুড়িচংয়ে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ৩

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুমিল্লা ও বুড়িচং প্রতিনিধি

বুড়িচংয়ে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ৩

বুড়িচংয়ে 'বন্দুকযুদ্ধে'র পর উদ্ধার অস্ত্রশস্ত্র- সমকাল

কুমিল্লার বুড়িচংয়ে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' ৩ ডাকাত নিহত হয়েছে। রোববার গভীর রাতে উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের কোমাল্লা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলো- বুড়িচং সদর ইউনিয়নের জগতপুর গ্রামের মৃত আবুল হাশেমের ছেলে অলি মিয়া (৪২), দেবিদ্বার উপজেলার চরবাকর এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে বাবুল মিয়া ওরফে তরকারি বাবুল (৩৮) ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার গোপালনগর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে এরশাদ মিয়া (২৬)। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বুড়িচং থানার ওসিসহ ৪ পুলিশ।

বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, কোমাল্লায় গোমতী নদীর বেড়িবাঁধে এক দল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে- এমন খবর পেয়ে  পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। খবর পেয়ে তাদের সঙ্গে যোগ দেয় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাত দল গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাস, এসআই মো. মোয়াজ্জেম, এএসআই মহিউদ্দিন, কনস্টেবল রফিক আহত হন। এক পর্যায়ে ডাকাত দল পালিয়ে গেলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ তিন ডাকাতকে উদ্ধার করে। পরে তাদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে ৭টি মুখোশ, একটি পিস্তল, ১টি পাইপগান, ৪ রাউন্ড গুলি ও বিপুল সংখ্যক দেশি অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। সকালে পুলিশ নিহত ডাকাতদের পরিচয় নিশ্চিত করে।

পুলিশ আরও জানায়, নিহত অলির বিরুদ্ধে বুড়িচংসহ বিভিন্ন থানায় ১০-১৫টি ডাকাতি ও অন্যান্য অভিযোগে মামলা রয়েছে। নিহত বাবুলের বিরুদ্ধ দেবিদ্বার থানায় ৫টি ডাকাতি ও অস্ত্র মামলা রয়েছে। এ ছাড়া বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। নিহত এরশাদের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় অস্ত্র ও ডাকাতিসহ ৯টি মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বুড়িচং থানায় ডাকাতির প্রস্তুতি, অস্ত্রসহ পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করেছে। ময়নাতদন্ত শেষে তাদের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।