গর্ভের শিশুর হাতে টিকটিকির মতো পেশি

প্রকাশ: ০৪ অক্টোবর ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

গর্ভের শিশুর হাতে টিকটিকির মতো অতিরিক্ত কিছু পেশি থাকে এবং তাদের জন্মের আগেই এসব ঝরে যায়। এক গবেষণায় এ তথ্য পাওয়া গেছে। জীববিজ্ঞানীরা বলছেন, এসব পেশি ক্ষণস্থায়ী হলেও বিবর্তনের এ বিষয়টি সম্ভবত সবচেয়ে প্রাচীন কোনো অবশেষ, যা এখনও মানুষের শরীরে রয়ে গেছে। ডেভেলপমেন্ট নামে একটি জার্নালে গবেষণার এ ফল প্রকাশিত হয়েছে। তবে এটা এখনও পরিস্কার নয়, মানবদেহে কেন এসব পেশি তৈরি হয় এবং শিশুর জন্মের আগেই সেগুলো ঝেড়ে ফেলা হয়।

জীববিজ্ঞানীরা বলছেন, মানবদেহের বিকাশের এই ধাপটির কারণেই হয়তো বৃদ্ধাঙ্গুলির কাজের দক্ষতা অনেক বেশি। বৃদ্ধাঙ্গুলি হাত ও পায়ের অন্যান্য আঙুলের মতো নয়। এতে অতিরিক্ত একটি পেশি থাকে। কোনো কোনো শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক লোকের আঙুলে ও হাতে কদাচিৎ হয়তো অতিরিক্ত পেশি পাওয়া গেছে।

কিন্তু বিজ্ঞানীরা যখন ৭ থেকে ১৩ সপ্তাহের গর্ভকালের ভ্রুণের থ্রিডি স্ক্যান করে পরীক্ষা করেছেন, তখন তারা সব পেশিই দেখতে পাননি। এসব পেশি যখন থাকে, তখন কখনও সেগুলো অঙ্গ বিকৃত হওয়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, গর্ভে বেড়ে ওঠা এ রকম ১৫টি শিশুর ওপর গবেষণা চালিয়ে তারা যেসব তথ্য পেয়েছেন, সেগুলো এ ধরনের জন্মগত ত্রুটির বিষয়ে আলোকপাত করতে পারে।

প্রধান গবেষক, যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. রুই দিওগো বলেন, আমাদের বৃদ্ধাঙ্গুলির সঙ্গে অনেক পেশি যুক্ত থাকে, এগুলো তার নড়াচড়াকে নিয়ন্ত্রণ করে; কিন্তু অন্যান্য আঙুলের সঙ্গে যুক্ত ছিল এ রকম অনেক পেশি আমরা হারিয়ে ফেলেছি। এসব পেশি ২৫ কোটি বছর আগে হারিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, প্রাপ্তবয়স্ক স্তন্যপায়ী প্রাণী, ইঁদুর ও কুকুরের এই পেশি নেই। অনেক অনেক বছর আগে ছিল। ধারণা করা হতো যে আমরা আমাদের নিজেদের চেয়ে মাছ, ব্যাঙ, মুরগি ও ইঁদুরের প্রাথমিক বিকাশ সম্পর্কে বেশি জানি। কিন্তু এ পদ্ধতিতে মানব-বিকাশ সম্পর্কে আমরা অনেক বিস্তারিত জানতে পারছি।

আমেরিকান মিউজিয়াম অব ন্যাচারাল হিস্ট্রিতে আদি-মানব ও মানব বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করা নৃবিজ্ঞানী ড. সের্জিও আলমেসিয়া বলেন, এ গবেষণার ফল থেকে মানব বিবর্তন সম্পর্কে আরও গভীরভাবে জানতে পারছি, আবার একই সঙ্গে এ গবেষণা অনেক প্রশ্নেরও জন্ম দিয়েছে। এ গবেষণার অভিনবত্ব হচ্ছে, আমরা নির্ভুলভাবে দেখতে পারছি মানবদেহের বিকাশের ঠিক কোন পর্যায়ে এসব জিনিস আবির্ভূত হয়েছে কিংবা হারিয়ে গেছে। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, যখন পুরো মানবদেহ পরীক্ষা করে দেখা হবে, তখন এ রকম বিস্তারিত আর কী কী দেখতে পাব?

জীববিজ্ঞানীরা এখন মানবদেহের অন্যান্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আরও বিশদভাবে পরীক্ষা করে দেখার পরিকল্পনা করছেন। সূত্র :বিবিসি।